খেলাধুলা

হেরে সিরিজ শেষ করলো বাংলাদেশ

দুয়ারে কড়া নাড়ছে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। কিউইদের বিপক্ষে সিরিজ শেষে কদিন বিশ্রামে থেকেই বিমান ধরতে হবে ওমান, আরব আমিরাতের। এরইমধ্যে ঘোষণা হয়েছে টাইগারদের বিশ্বকাপ স্কোয়াড।

কিন্তু প্রস্তুতি কতটা হলো এই প্রশ্ন থেকেই যায়। কেন না বিশ্বকাপে খেলতে হবে স্পোর্টিং উইকেটে। যেটা মিরপুরের শের-ই বাংলা স্টেডিয়ামে অস্ট্রেলিয়া, নিউজিল্যান্ড সিরিজে ছিল অনুপস্থিত।

যদিও কিউইদের বিপক্ষে সিরিজের শেষ টি-টোয়েন্টিতে অনেকটা স্পোর্টিং উইকেট ছিল তাতে হতাশ করেছে বাংলাদেশ দল। কিন্তু কিউইরা ঠিকই খেলেছে স্বাচ্ছ্যন্দে। যেটা ছিল না গত চার ম্যাচে।

শুক্রবার বিকেলে সিরিজের শেষ ম্যাচে টস জিতেছিল কিউইরা। টস জিতে সিদ্ধান্ত নেয় ব্যাট করার। দুই ওপেনার ফিন অ্যালেন ও রাচীন রবীন্দ্রর ব্যাটে গত চার ম্যাচে যা দেখা যায়নি আজ দেখা গেছে উল্টোটা।

অনেকটা স্পোর্টিং উইকেট পেয়ে ব্যাটে রান তোলার চেষ্টা করেন দ্রুত। দুজনের ৫৮ রানের জুটি ভাঙে ৫.৪ ওভারের মাথায় রবীন্দ্রর ১৭ (১২) রানে বিদায়। সিরিজে প্রথম ম্যাচ খেলতে নেমে শরিফুল ইসলাম এই ওভারে তুলে নেন আরেক ওপেনার অ্যালেনকেও (৪১)।

এই সিরিজের প্রত্যেকটি ম্যাচেই টম ল্যাথাম চেষ্টা করেছেন সামনে থেকে হাল ধরার। আজও খেললেন দলের সর্বোচ্চ ৫০ (৩৭) রানের অপরাজিত ইনিংস।

এছাড়া শেষ দিকে হ্যানরি নিকলসের ২০ (২১), কোল ম্যাককনিকের ১৭ (১০) রানে ৫ উইকেটে সিরিজের সর্বোচ্চ দলীয় সংগ্রহ ১৬১ রান তোলে কিউইরা।

বাংলাদেশের পক্ষে শরিফুল ২ উইকেট নিলেও ৪ ওভারে দেন ৪৮ রান। তাসকিন আহমেদ ৩৪ রানে নেন ১ উইকেট। নাসুম আহমেদ ও আফিফ নেন ১টি করে উইকেট।

বড় লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে নিজেদের কন্ডিশনও যেন অচেনা হয়ে যায় টাইগার ব্যাটারদের কাছে। উইকেট হারিয়েছে নিয়মিত বিরতিতে। দলের হাল ধরতে পারেননি অভিজ্ঞদের কেউ।

শুরতে লিটন দাস ১০ (১২) রানে ফেরেন আজাজ প্যাটেলের বলে কুগলেইনের হাতে ক্যাচ দিয়ে। সৌম্য সরকার সুযোগ পেয়েও ব্যর্থ হয়েছেন। ৯ বলে ৪ রান করে ক্যাচ দেন রবীন্দ্রর হাতে কোল ম্যাককনিকের বলে।

মুশফিকুর রহিম এই সিরিজে ব্যর্থতার বৃত্ত থেকেই বের হতে পারেননি। এই ম্যাচে ৩ রান করে ফেরেন রবীন্দ্রর বলে ক্যাচ দিয়ে।

দলের হাল ধরেন আফিফ হোসেন মাহমুদউল্লাহকে নিয়ে। কিন্তু মাহমুদউল্লাহ দিতে পারেননি যোগ্য সঙ্গ। ৬৩ রানের জুটি ভাঙে মাহমুদউল্লাহ’র ২৩ (২১) রানে বিদায়ে।

এরপর নুরুল হাসান ৪, শামিম হোসেন ২, তাসকিন আহমেদ ২ রানে ফিরলেও আফিফের একার লড়াই দলকে পৌঁছাতে পারেনি কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে। আফিফ অপরাজিত থেকেছেন ৪৯ (৩৩) রানে। কুড়ি ওভারে বাংলাদেশের ইনিংস থামে ৮ উইকেটে ১৩৪ রানে। ২৭ রানের জয়ে কিউইরা সিরিজ শেষ করল ৩-২ ব্যবধানে।

কিউইদের পক্ষে ২টি করে উইকেট নেন আজাজ প্যাটেল ও স্কট কুগলেইন। ১ উইকেট করে নেন জ্যাকব ডাফি, কোল ম্যাককনিক, বেন সেয়ার্স ও রাচীন রবীন্দ্র।

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button