আইন ও অপরাধ

বগুড়ায় আন্তঃজেলা ডাকাত দলের ৫ সদস্য আগ্নেয়াস্ত্রসহ আটক

বগুড়ায় ডাকাতির প্রস্তুতিকালে মাটীডালী বিমানমোড় হতে অস্ত্রসহ আন্তজেলা ডাকাতদলের ০৫ জন সদস্যকে আটক করেছে সদর থানা পুলিশ।

পুলিশ জানায়,গোপন সুত্রে জানা যায়, বগুড়া সদর থানাধীন মাটিডালী বিমান মোড় ২য় বাইপাস রোডস্থ প্যারাডাইস হোটেলের পুর্বে করোতোয়া ব্রীজ সংলগ্ন পাকা রাস্তর পার্শ্বে অন্ত জেলা ডাকাতিদলের ১০/১২ জন সক্রিয় ডাকাত দল ডাকাতির প্রস্তুতি গ্রহণ করছে। উক্ত সংবাদের ভিত্তিতে রাত্রি ১০.৩৫ ঘটিকায় থানা পুলিশের একটি বিশেষ আভিযানিক দল ঘটনাস্থলে উপস্থিত হলে ডাকাতদল পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দৌড়ে পালানোর চেষ্টাকালে আসামীদের আটক করা হয়।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন, দুদু মিয়ার ছেলে আব্দুল করিম মন্ডল (২৬), মৃত নুর হোসেনের ছেলে আনজু (৩৫), মহির উদ্দিনের ছেলে মোস্তাক মিয়া ওরফে মোর্চ্চা (৪৯), শ্রী পরশুরাম চন্দ্রের ছেল শ্রী কার্তিক (২৪) ও চন্দ্র দাসের ছেলে সুজন চন্দ্র দাস (২২)।

ওই সময় তাদের কাছ থেকে একটি ওয়ান শুটার গান (যাতে কার্তুজ ব্যবহার করা যায়), ২টি তাজা কার্তুজ (১টি লাল ও ১টি কালো), একটি চায়নিজ চাপাতি (যার দৈর্ঘ্য ১২.৫ ইঞ্চি), ১টি বার্মিজ চাকু (যার দৈর্ঘ্য ১০ ইঞ্চি), একটি গ্রিল কাটার মেশিন (হেভী কাতানী), মানুষকে বেঁধে রাখার ৩০ হাত রশি, ১টি কচটেপ, ১টি মানকি টুপি উদ্ধার করা হয়৷

বৃৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় জেলার পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী তার নিজ কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের জানান, গ্রেফতারকৃতরা আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সদস্য। পরিকল্পনা মাফিক তারা বিভিন্ন জেলায় অপরাধ সংগঠিত করে আসছিল। তারা মূলত বিভিন্ন বড় বড় দোকান, ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান, জুয়েলারি শপ সহ রাতে গরুর ট্রাকগুলোতে ডাকাতি করতো৷ বগুড়ায় তারা মূলত বড়রকম কোন অপরাধ সংগঠিত করার জন্য সংগঠিত হয়েছিল। তবে খবর পেয়ে দ্রুত সময়ে সদর থানা পুলিশ তাদের গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়৷ তবে ওই সময় অজ্ঞাত আরও ৫/৭ জন ডাকাত দলের সদস্য পালিয়ে যায়। গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে এর আগেও বিভিন্ন থানায় ডাকাতি ও ডাকাতির প্রস্তুতি মামলা আছে।
তাদের আদালতে প্রেরণ করে অধিক জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আমরা ১০ দিনের রিমান্ড চাইবো।
পাশাপাশি জেলায় যেন কোন অপরাধ সংগঠিত না হয় এজন্য আমরা প্রো-অ্যাক্টিভ পুলিশিং চালিয়ে যাবো৷
পুলিশ সুপার অপরাধ দমনে বগুড়ার সাধারণ মানুষদের সহায়তা চেয়ে বলেন, আপনাদের আশপাশে সন্দেহমূলক কিছু বা আগুন্তকরা দলবদ্ধভাবে ঘোরাফেরা করলে ৯৯৯ এর মাধ্যমে আমাদের জানান।

পুলিশ সুপার সুদীপ কুমার চক্রবর্তী আরও জানান, গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে ডাকাতি প্রস্তুতি ও অস্ত্র আইনে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হবে। পাশাপাশি তাদের এই চক্রের সকল সদস্যকে আইনের আওতায় আনা হবে।

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button