বগুড়া জেলা

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে হত্যা করতে পারেনি ঘাতকরা: মজনু

বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মজিবর রহমান মজনু বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে হত্যা করতে পারেনি ঘাতকরা। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ক্ষমতালোভী নরপিশাচ কুচক্রীমহল বঙ্গবন্ধু ও তার সহধর্মিণী বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবসহ তার পরিবার এবং নিকটাত্মীয়সহ ২৬ জনকে নৃশংসভাবে হত্যা করেছিল। তারা চেষ্টা করেছিল চেখ মুজিবের পরিবারকে স্বাধীন বাংলাদেশ থেকে মুছে ফেলতে। সেসময় বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা পশ্চিম জার্মানিতে অবস্থান করায় তারা প্রাণে বেঁচে যান। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এই দেশের মাটিতে ও মানুষের মনে, আদর্শে চিরঞ্জীব, তার চেতনা অবিনশ্বর। প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের কাছে শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শে উজ্জীবীত হয়ে সোনার বাংলাকে গড়ে তুলবে। জাতির পিতা চেয়েছিলেন ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত সমাজ প্রতিষ্ঠা করতে। বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশের জনগণের মুক্তির যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, তার কন্যা জননেত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে ক্ষুধা ও দারিদ্র্যকে জয় করে বিশ্বসভায় একটি উন্নয়নশীল, মর্যাদাবান জাতি হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে বাংলাদেশ। বিশ্বের অনেক দেশ বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি বলতো, তারা আজ শেখ হাসিনার নেতৃত্বে এগিয়ে চলা বাংলাদেশকে উন্নয়নের রোল মডেল বলে আখ্যায়িত করেছে। বাংলাদেশের মানুষ চিরকাল জাতি কৃতজ্ঞচিত্তে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করবে।

জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের আয়োজনে মঙ্গলবার শহরের টেম্পল সড়কে দলীয় কার্যালয়ে বাদ যোহর মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব মজিবর রহমান মজনু।

জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাইমুর রাজ্জাক তিতাসের সভাপতিত্বে মিলাদ ও দোয়া মাহফিলে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঞ্জুরুল আলম মোহন, দপ্তর সম্পাদক আল রাজী জুয়েল, উপ দপ্তর সম্পাদক খালেকুজ্জামান রাজা, জেলা ছাত্রলীগ ও বিভিন্ন ইউনিটের নেতৃবৃন্দ।

দোয়া ও মিলাদ মাহফিলে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সহ আত্মদানকারী সকলের আত্মার মাগফিরাত কামনা করে ও করোনায় আক্রান্ত সকলের রোগমুক্তি কামনা করা হয়। এদিন সকালে দলীয় কার্যালয়ের সামনে কালো পতাকা, দলীয় পতাকা উত্তোলন ও কালোব্যাজ ধারণ করা হয়।

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button