রাজনীতি

‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ এর ফটোগ্রাফ উপহার পেয়ে উচ্ছ্বসিত ছাত্রলীগ সভাপতি

গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে স্থান পাওয়া “শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু” এর প্রতিকৃতির বাঁধানো ফটোগ্রাফ উপহার পেয়ে উচ্ছ্বাস প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়। শুক্রবার জুম্মা নামাজের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় চত্বরে রাজনীতির আতুরঘর খ্যাত মধুর ক্যান্টিনের সামনে বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক মুকুল ইসলাম তাঁকে ফটোগ্রাফটি উপহার দেন।

বিজ্ঞাপন

ফটোগ্রাফটি উপহার পেয়ে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় উচ্ছ্বাস প্রকাশ করে বলেন, এটি বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকীর সেরা উপহার ছিল। বগুড়ার প্রত্যন্ত গ্রাম বালেন্দায় ১০০ বিঘা জমির উপর দুই জাতের ধানে এই চিত্রকর্মটি করা হয়েছিল। যা গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে স্থানে করে নিয়েছে। প্রায় ১২ লাখ স্কয়ার ফিটের এই শস্যচিত্রে মানুষের ভালবাসা প্রকাশ করেছে। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সকল নেতাকর্মীকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ অনুপ্রাণিত হয়ে ও দেশরত্ন শেখ হাসিনার নির্দেশনায় দেশের মানুষের জন্য কাজ করতে হবে। সেইসাথে সকল ষড়যন্ত্রের মোকাবেলা করার জন্য ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের প্রস্তুত থাকার আহ্বান জানান। এবং ফটোগ্রাফ উপহার দেয়ায় জেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক মুকুল ইসলামকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধুর শিল্পকর্মটি উপহার দেয়ার বিষয়ে জেলা ছাত্রলীগের প্রচার সম্পাদক মুকুল ইসলাম বলেন, সারাদেশের মধ্যে বগুড়ায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান প্রতিকৃতি শস্যচিত্রের মাধ্যমে স্থাপন করা হয়েছে। দুই জাতের ধানে বঙ্গবন্ধুর অবয়ব ফুটিয়ে তোলা হয়েছিল। আর তা গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে স্থান করে নিয়েছে। তাই এই ঐতিহাসিক শিল্পকর্মটির ফটোগ্রাফ বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়কে উপহার হিসেবে দিয়েছি। আমাদের চেতনা ও আদর্শে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও দেশরত্ন শেখ হাসিনা।

ফটোগ্রাফটি উপহার প্রদানকালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সভাপতি সঞ্জিদ চন্দ্র দাস, সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন, কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ সভাপতি সোহান হোসেন, মাহবুব, মহানগর দক্ষিণ ছাত্রলীগের সভাপতি যোবাইর হোসেন সহ কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগ ও বগুড়া জেলা ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, গত ২৯ জানুয়ারি শেরপুর উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম বালেন্দার মাঠে উদ্বোধন করা হয় শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু শিল্পকর্মটির ধান রোপণের। পরে ১৬ মার্চ গিনেস ওয়ার্ল্ড রেকর্ডে স্থান করে নেয় ‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ এই শিল্পকর্ম। চীনের একটি রেকর্ড ভেঙে গিনেস বুকে নতুন এ রেকর্ড গড়ে বাংলাদেশ।

বালেন্দা গ্রামে ১২০ বিঘা জমি ইজারা নিয়ে শুরু হয় শস্যচিত্র তৈরির কাজ। চীন থেকে আমদানি করা বেগুনি ধান ও দেশি সবুজ হাইব্রিড ১৬ মার্চ গিনেস বুক অব ওয়ার্ল্ড রেকর্ডস কর্তৃপক্ষ ইমেইল বার্তায় স্থান করে নেওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পর থেকে সারাদেশের মতো বগুড়াবাসীদের মাঝে আনন্দের জোয়ার বয়ে যায়। ২৬ এপ্রিল সোমবার দুপুরে ‘শস্যচিত্রে বঙ্গবন্ধু’ শিল্পকর্মের ধান কাটা উৎসব শুরু হয়।

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button