আইন ও অপরাধ

চাঁদাবাজিতে বাঁধা দেয়ায় খুন করা হয় বাবুকে, ৮ ব্যক্তির বিরুদ্ধে মামলা

বগুড়ার শাজাহানপুর উপজেলার শাবরুল মাছের আড়তে চাঁদাবাজি করতে বাধা দেয়ায় নৃশংসভাবে খুন করা হয়েছে স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা শিহাব উদ্দিন বাবু (৩০) কে ওই এলাকার চিহ্নিত সন্ত্রাসী সাগর (৩২) সহযোগীদের নিয়ে এই হত্যাকান্ড ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন নিহত বাবুর স্ত্রী রুমি খাতুন (২৮)।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় সোমবার বিকেলে সাগরকে প্রধান আসামী করে ৮ ব্যক্তির বিরুদ্ধে শাজাহানপুর থানায় মামলা করেছেন রুমি খাতুন।

মুঠোফোনে রুবি খাতুন জানান, ‘শাবরুল বাজারে তাদের নিজস্ব সম্পত্তিতে মাছের আড়ত রয়েছে। আড়তে মাছ ব্যবসায়ীদের কাছে চাদাবাজি করতে চেয়েছিল সাগর কিন্তু বাবু তাতে বাঁধা দেয়। এতে ক্ষুব্ধ হয়ে বাবুকে মারার হুমকি দেয় সাগর। বিষয়টি পরিবার জানার পর তাকে বেশ কিছুদিন যাবত বাবুকে বাড়ির বাইরে যেতে দিতো না।

গত রোববার সন্ধ্যায় গর্ভবর্তী স্ত্রীর জন্য ডাব, ওষুধ এবং ভোজ্য তেল কিনতে বাবু বাড়ি থেকে বের হয়। সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে শাবরুল বাজার এলাকায় নিজ বাড়ির পাশেই উপর্যুপরি ধারালো অস্ত্রের কোপে সন্ত্রাসীরা তাকে নৃশংসভাবে খুন করে।

রুমি খাতুন আরও জানান, সাগর যখন জেলখানায় বন্দি ছিল তখন তার স্বামীকে কেউ মারতে চায়নি। সাগর জামিনে এসে বাবুকে মারতে চেয়েছিল।

নিহত শিহাব উদ্দিন বাবু উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আগের কমিটিতে সমাজকল্যাণ সম্পাদক ছিলেন উল্লেখ করে শাজাহানপুর উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক নুরুজ্জামান জানিয়েছেন।

বাবুর পরিবারের লোকজন জানায়, সঠিক তদন্ত করলে সাগরের বিরুদ্ধে মাদক, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজি, হত্যাসহ অনেক অপরাধের তথ্য পাওয়া যাবে।

শাবরুল বাজার এলাকার ব্যবসায়ীরা বলেন, এই বাজারে সাগরের কোনো দোকান-পাট না থাকলেও সে নিয়মিত চাঁদাবাজি করতো। কেউ বিরোধিতা করলে তাকে এলাকা ছাড়া করার হুমকি দিতো। তাই তার বিরুদ্ধে কেউ কথা না বললেও বাবু মাঝে মধ্যে প্রতিবাদ করতো।

শিহাব উদ্দিন বাবু খুনের ঘটনায় সাগরসহ ৮ শাজাহনপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আব্দুল্লাহ আল মামুন বগুড়া লাইভকে জানায়, হত্যাকান্ডে জড়িত থাকতে পারে এমন ৪ ব্যক্তিকে প্রাথমিক তদন্তে সন্দেহ করা হচ্ছে। সন্দেহদের নাম এজাহারে উল্লেখ আছে। হত্যাকান্ডে সাগরের সম্পৃক্ততার বিষয়ে ওসি বলেন, সাগরের পেছনের ইতিহাস অত্যন্ত খারাপ। কিছুদিন আগে তাকে এক হত্যা
মামলায় গ্রেফতার করা হয়। ওই মামলায় সে জামিনে রয়েছে। এই হত্যাকান্ডে রাজনৈতিক কোনো বিষয় ছিল না জানিয়ে তিনি আরও বলেন, মাছের আড়ত নিয়ে বিরোধের জের ধরে বাবুকে হত্যা করা হয়েছে এটা পরিষ্কার। মামলার আসামীদের গ্রেফতারে পুলিশী অভিযান চলছে।

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button