জাতীয়

চলমান বিধিনিষেধ বাড়লো ৬ই জুন পর্যন্ত

করোনার সংক্রমণ রোধে চলমান বিধিনিষেধ ৬ই জুন পর্যন্ত বাড়িয়েছে সরকার।

বিজ্ঞাপন

পরিস্থিতি বিবেচনায় ও ভারতের অবস্থা দেখে বাড়তি সতর্কতার অংশ হিসেবে এই বিধিনিষেধ বাড়ানো হলো। বিধিনিষেধের মেয়াদ বাড়িয়ে রবিবার (৩০ মে) মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

প্রজ্ঞাপনে উল্লেখ করা হয়েছে, সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনায় আগের সকল বিধিনিষেধ আরোপের সময়সীমা আগামী ৩০ মে মধ্যরাত থেকে ৬ জুন মধ্যরাত পর্যন্ত বর্ধিত করা হলো।

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন জানিয়েছেন, জাতীয় টেকনিক্যাল কমিটির পরামর্শেই বিধিনিষেধ বাড়ানো হয়েছে। সংক্রমণের হার ৫ শতাংশে না পৌঁছানো পর্যন্ত এটি অব্যাহত থাকবে। তবে, সেটিও পর্যবেক্ষণ ওপর নির্ভর করছে বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী।

এদিকে, চাঁপাইনবাবগঞ্জসহ সীমান্তবর্তী ৪টি জেলা সাতক্ষীরা, কুষ্টিয়া, রাজশাহী, নাটোরে লকডাউনের পরামর্শ দিয়েছে কমিটি, যা বিবেচনা করা হবে বলেও জানান প্রতিমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘বর্তমানে সংক্রমণ ৮-৯ শতাংশের দিকে। অর্থাৎ পরিস্থিতি ভালোর দিকে।’

এদিকে, বাংলাদেশ-ভারত সীমান্ত বন্ধের সময়সীমা ১৪ই জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। তবে, এই সময়ে যথারীতি আমদানি-রপ্তানি অব্যাহত থাকবে।

এর আগে, করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকায় গেল ৫ এপ্রিল থেকে ১৩ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এ সময় লকডাউন সেভাবে কার্যকর না হওয়ায় ১৪ এপ্রিল থেকে ‘কঠোর বিধিনিষেধ’ আরোপ করে সরকার। তারপর থেকে এ পর্যন্ত ৫ দফা বিধিনিষেধের মেয়াদ বৃদ্ধি করা হয়। বিধিনিষেধ চলাকালেই মহানগরীগুলোতে বাস চলাচলের অনুমতি দেয়া হয়। এরপর অনুমতি দেয়া দূরপাল্লার বাস চলাচলের। সবশেষ গেল ২৩ মে বিধিনিষেধের মেয়াদ আরও ৭ দিন বাড়িয়ে প্রজ্ঞাপন্ন জারি করা হয়। আজ সেই বিধিনিষেধের শেষ দিনে আবারও বৃদ্ধি করা হলো বিধিনিষেধের সময়সীমা।

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button