শেরপুর উপজেলা

বগুড়ায় প্রতিবন্ধী শিশু বলাৎকারের চেষ্টায় মামলায় কিশাের গ্রেপ্তার

অবশেষে ঘটনার ১৪দিনের মাথায় বগুড়ার শেরপুরে প্রতিবন্ধী শিশু বলাৎকারের চেষ্টার ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে। ভুক্তভােগী শিশুটির বাবার দেওয়া অভিযােগটি শনিবার (১০এপ্রিল) সকালের দিকে মামলা হিসেবে নথিভুক্ত করা হয়েছে। সেইসঙ্গে মামলায় অভিযুক্ত আনিছুর রহমান আকাশ (১৫) নামে কিশােরকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। সে উপজেলার উপজেলার সুঘাট ইউনিয়নের গুয়াগাছি গ্রামের আলম হােসেনের ছেলে। শনিবার দুপুরের দিকে পুলিশ অভিযান চালিয়ে গুয়াগাছি গ্রামস্থ নিজ বাড়ি থেকে তাকে গ্রেপ্তার করেছে।

বিজ্ঞাপন

মামলা সুত্রে জানা যায়, বিগত ২৬মার্চ দুপুরের দিকে বাড়ির পাশে আট বছরের ওই শিশুটি খেলা করছিল। একপর্যায়ে চকলেট খাওয়ানাের লােভ দেখিয়ে শিশুটিকে তাদের বসতবাড়ি সংলগ্ন একটি চাপড়া ঘরে নিয়ে যাওয়া হয়। এরপর জোরপূর্বক প্রতিবন্ধী শিশুটিকে বলাৎকারের চেষ্টা চালায় কিশাের আনিছুর রহমান আকাশ। এসময় শিশুটির চিৎকারে আশপাশের লােকজন এগিয়ে এলে কৌশলে অভিভুক্ত আকাশ পালিয়ে যায়। পরে এই শিশুটিকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য স্থানীয় হাসপাতালে পাঠানাে হয় বলে এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এদিকে এই ঘটনাটি ধামাচাপা দিতে মােটা অঙ্কের টাকা নিয়ে মরিয়া হয়ে মাঠে নামেন গ্রাম্য মাতব্বররা। এরই ধারাবাহিকতায় গ্রাম্য বিচারের মাধ্যমে আপােষ-রফা করার আশ্বাস দিয়ে সময়ক্ষেপন করেন। একইসঙ্গে ভুক্তভােগীর পরিবারকে আইনের আশ্রয় নিতেও বাধার সৃষ্টি করেন। পরবর্তীতে বিচার না পেয়ে সুঘাট ইউনিয়ন বিট পুলিশিং কর্মকর্তার পরামর্শে শনিবার (১০এপ্রিল) সকালে থানায় উপস্থিত হয়ে ভুক্তভােগী শিশুটির বাবা বাদি হয়ে শেরপুর থানায় লিখিত অভিযােগ দেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা থানা পুলিশের উপ- পরিদর্শক (এসআই) তন্ময় বর্মন ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘটনাটি স্থানীয়ভাবে আপােষ রফার চেষ্টা করা হয়। তাই প্রথমে তাদের জানানাে হয়নি। কিন্তু সমঝােতা করতে ব্যর্থ হয়ে পুলিশকে জানানাের তাৎক্ষণিক থানায় মামলা নেওয়া হয়। পাশাপাশি মামলায় অভিযুক্ত আনিছুর রহমান আকাশকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলেও দাবি করেন এই কর্মকর্তা।

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button