বগুড়া সদর উপজেলা

বগুড়ায় ছাত্রলীগ ছাত্রদলের ধাওয়া-পাল্টা-ধাওয়া


বগুড়ায় শহীদ মিনারে ফুল দেয়াকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির হট্টগোল। ছাত্রলীগ ছাত্রদলের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসময় ছাত্রদলের ৪ জন আহত হয়েছেন।

রোববার সকাল টার দিকে বগুড়া শহরের শহীদ খোকন পার্কে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন কালে এঘটনা ঘটে।

জানা যায়, সকাল ৮টার আগে শহীদ মিনারে বিএনপির নেতৃবৃন্দ শ্রদ্ধা নিবেদন করার কথা থাকলেও তারা সকাল সাড়ে ৮টার পর আসে। এসময় জেলা বিএনপির আহ্বায়ক সদরের আসনের সাংসদ জিএম সিরাজের নেতৃত্বে বিএনপি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা ফুল দিতে আসেন। এর আগে সকাল ৮টায় বগুড়া জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব মজিবর রহমান মজনু ও সাধারণ সম্পাদক রাগেবুল আহসান রিপুর নেতৃত্বে জেলা আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

এসময় জেলা বিএনপির নেতাকর্মীরা শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে খোকন শিশু উদ্যানে অবস্থান নেয়। জেলা ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা স্লোগান দিতে থাকে, স্লোগান দেয়া এক পর্যায়ে হট্টগোলের সৃষ্টি হয়। হট্টগোলের সময় উভয়ের ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে।
এসময় জেলা বিএনপির আহ্বায়ক সদরের আসনের সাংসদ জিএম সিরাজকে সরকার দলীয় সমর্থকরা হামলার চেষ্টা করলে পুলিশ তাকে বগুড়া সদর ফাড়িতে নিয়ে যায়। এসময় ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের মধ্যে নবাববাড়ি সড়কে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হলে ছাত্রদলের ৪ কর্মী আহত হোন।


জেলা ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক নূরে আলম রিগ্যান জানান, আমরা শান্তিপূর্ণ ভাবে শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে যাই। এসময় সরকার দলীয় সমর্থকরা স্লোগান দিতে দিতে ধাওয়া করে। ধাওয়া করে নবাববাড়ি সড়কে ছাত্রদল নেতাকর্মীদের মারপিট করে। মারপিটে ছাত্রদলের ৪ জন আহত। আহতদের প্রাথমিক চিকিৎসা প্রদান করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।


এদিকে জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাইমুর রাজ্জাক তিতাস জানান, শহীদ মিনারে জেলা বিএনপির ফুল দিতে এসে প্রধানমন্ত্রী হাসিনাকে নিয়ে উসকানিমূলক স্লোগান দিয়ে হট্টগোলের চেষ্টা করে এসময় জেলা ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ তা প্রতিহত করে।


বগুড়া সদর ফাঁড়ির উপ পরিদর্শক (এসআই) খোরশেদ জানান, শহীদ মিনারে ফুল দেয়ার পর বিএনপির ছাত্রলীগ ও ছাত্রদলের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এসময় সদরের আসনের সাংসদ জিএম সিরাজকে সদর ফাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয় নিরাপত্তার জন্য। পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে পুলিশ।
বর্তমানে শহীদ মিনার এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।


এদিকে বগুড়া সদর আসনের সাংসদ জিএম সিরাজের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও তার কোন বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button