সারাদেশ

ঢাকার বায়ুমান স্বাভাবিকের চেয়ে ৬ গুণ বেশি দূষিত

চরম অস্বাস্থ্যকর মাত্রায় পৌঁছেছে ঢাকার বায়ুমান।

রোববার (১০ জানুয়ারি) সকাল থেকে স্বাভাবিকের তুলনায় ৬ গুণ বেশি দূষিত বায়ুগ্রহণ করতে হচ্ছে রাজধানীবাসীকে। বায়ুদূষণের প্রভাবে রাজধানীতে দেখা যাচ্ছে ধোঁয়াশাচ্ছন্ন পরিস্থিতি।

পরিবেশ অধিদফতরের মান মাত্রায় মানুষের স্বাভাবিক বায়ুগ্রহণ ক্ষমতা ৫০ একিউআই হলেও যুক্তরাজ্যভিত্তিক বায়ুমান যাচাই সফটঅয়্যার এয়ার ভিজ্যুয়ালে সকাল ১১টা ১০ মিনিটে ঢাকার বায়ুমান সূচক পাওয়া গেছে ৪৭০ একিউআই, যা স্বাভাবিকের চেয়ে ৬ গুণ বেশি দূষণ।

এ সময় রাজধানীর প্রতি ঘনমিটার বাতাসে সুক্ষ্ম ধূলিকনার (পিএম ২.৫) উপস্থিতি পাওয়া গেছে ৪৫৫.৭ মাইক্রোগ্রাম, যা মানব স্বাস্থ্যের জন্য চরম হুমকি বলে মনে করছেন চিকিৎসকরা।

সফটওয়রাটির গ্লোবাল র‌্যাংকিংয়ে সকাল থেকে ঢাকার অবস্থান ছিল প্রথম। যেখানে প্রথম অকস্থানে থাকা ঢাকার বায়ুসূচক ৪৭০ একিউআই সেখানে দ্বিতীয় অবস্থানে থাকা নেপালের কাঠমান্ডু শহরের সুচক ছিল মাত্র ১৯৪ একিউআই।

স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়ুমণ্ডলীয় দূষণ অধ্যয়ন কেন্দ্রের একটি জরিপ বলছে, করোনার কারণে এখনো অনেক ক্ষেত্রে স্থবিরতা থাকলেও গত বছরের জানুয়ারি মাসের তুলনায় এবার ১২ শতাংশ বায়ুদূষণ বেড়েছে। ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের তুলনায় ২০২০ সালের ডিসেম্বরে ১৫ শতাংশ বেশি দূষণ ছিল।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে বায়ুমান গবেষক, স্টামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিবেশবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারম্যান ড. আহমেদ কামরুজ্জামান মজুমদার বলেন, আমরা আগেই বলেছি জানুয়ারিতে ঢাকায় বায়ুদূষণের কারণে স্বাস্থ্যগত জরুরি অবস্থা জারির পরিস্থিতি তৈরি হতে পারে। এখন তাই দেখতে পারছি। অথচ আমাদের দেয়া সতর্কতা অনুযায়ী দ্রুত ব্যবস্থা নিলে এমন পরিস্থিতি হতো না।

দূষণের সূত্র ও সমাধান এখন চিহ্নিত উল্লেখ করে মানব স্বাস্থ্যের বিবেচনায় সংশ্লিষ্ট প্রশাসকে জরুরি ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেওয়ারও আহ্বান জানান ড. আহমেদ কামরুজ্জামান।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button