বগুড়া

একের পর বহিষ্কার কাহিল এখন বগুড়া বিএনপি

একের পর বহিষ্কার কাহিল এখন বগুড়া বিএনপি।

চলমান বহিষ্কারের সর্বশেষ শিকার হলেন বগুড়া জেলা ছাত্রদলের দপ্তর সম্পাদক মিল্লাত হোসেন।


৪ঠা জানুয়ারি তাকে দল থেকে বহিষ্কারের চিঠি দেওয়া হয়।


এব্যাপারে জানতে চাইলে মিল্লাত হোসেন জানান, তার বাড়ি শেরপুর পৌর এলাকায়। এখানে পৌর মেয়র পদে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে ব্যাবসায়ী স্বাধীন কুন্ডুকে।


ব্যাবসায়ী কুন্ডু বাবু এখানে ভোটের মাঠেও ব্যবসায়ী আচরন করায় দলীয় কর্মিদের অনেকেই তা” পছন্দ করেনি। ফলে বিএনপি ও অঙ্গদলের অনেক নেতা দলের বিদ্রোহী প্রার্থী মোঃ জানে আলম খোকার পক্ষে কাজ করছে।


ফলে অনেকের ধারণা হয়েছে, বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষে হয়তো আমার পরোক্ষ সমর্থন রয়েছে।


মুলত ওই সন্দেহের বশেই আমাকে বহিষ্কার করা হয়েছে।
ছাত্রদলের কেন্দ্রীয় সহ দপ্তর সম্পাদক আজিজুল হক সোহেল বগুড়া জেলা ছাত্র দলের দপ্তর সম্পাদক মিল্লাতকে বহিষ্কারের কথা কনফার্ম করেছেন।


এর আগে গত ২৯ ডিসেম্বর দল থেকে শেরপুর উপজেলা বিএনপিি প্রভাবশালী নেতা ও মেয়র প্রার্থী মোঃ জানে আলম খোকাকে দলের প্রাথমিক সদস্য পদ থেকে আজিবন বহিষ্কার করেছে বিএনপি।
এর আগে গত ১ জানুয়ারি বগুড়ার সারিয়াকান্দি পৌর ও উপজেলা কমিটি বিলুপ্ত করা হয়।


পরদিন ২ জানুয়ারি নতুন করে দুটি আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করা হয়।


এর আগে গত ২৯ সেপ্টেম্বর বগুড়া জেলা যুবদলের সাবেক সভাপতি ও প্রভাবশালী বিএনপি নেতা সিপার আল বখতিয়ারকে দল থেকে বহিষ্কার করা হলে বগুড়া বিএনপিতে ব্যাপক প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়।


এই বহিষ্কার প্রসঙ্গে জানতে চাইলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সিনিয়র নেতা বলেন, ১৮ মাস আগে দেশের শীর্ষ স্থানীয় ব্যাবসায়ী জি এম সিরাজকে দলের আহ্বায়ক করার
পর থেকেই সংকটের সৃষ্টি। আপতত এর কোন সুরাহাও দেখছেননা তিনি।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button