শিক্ষা

এইচএসসির ফল প্রকাশ ১০ জানুয়ারির মধ্যে : যেভাবে হচ্ছে মূল্যায়ন

২০২০ সালের উচ্চ মাধ্যমিক ও সমমান পরীক্ষার ফল আগামী ১০ জানুয়ারির মধ্যে প্রকাশ হতে পারে। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একটি সূত্র থেকে জানা গেছে, আগামী ৭ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার ফল প্রকাশের জন্য প্রধানমন্ত্রীর অনুমতি চাওয়া হয়েছে।

সূত্রটি জানায়, পরীক্ষা ছাড়াই ফল প্রকাশ করতে গেলে রাষ্ট্রপতির অধ্যাদেশ জারি করতে হবে। চলতি সপ্তাহের ৫ অথবা ৬ জানুয়ারি এ অধ্যাদেশ জারি হতে পারে। এর পরই আনুষ্ঠানিকভাবে ফল প্রকাশ করা হবে।

শিক্ষা বোর্ডগুলো থেকে জানা গেছে, ফল মোটামুটি প্রস্তুত করে রাখা হচ্ছে। আগামীকাল সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকে এ-সংক্রান্ত অধ্যাদেশ জারির বিষয়টি উত্থাপিত হবে। সেখান থেকে নথিপত্র রাষ্ট্রপতির কাছে পাঠানো হবে। ৫ অথবা ৬ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি অধ্যাদেশ জারি করতে পারেন। এরপর এইচএসসির ফল প্রকাশে আর কোনো বাধা থাকবে না। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সময় পেলে আগামী বৃহস্পতিবারই ফল প্রকাশ করা হতে পারে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে এইচএসসির গ্রেড মূল্যায়ন কমিটির সদস্য সচিব ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ সমকালকে বলেন, এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রস্তুত আছে। তবে অধ্যাদেশ জারি না হওয়ায় তা প্রকাশ করা সম্ভব হয়নি। তিনি বলেন, আমরা আশা করছি, আগামী বুধবার রাষ্ট্রপতি অধ্যাদেশ জারি করবেন। অধ্যাদেশ জারির পর ফল প্রকাশে আর কোনো বাধা থাকবে না। ওইদিন (বৃহস্পতিবার) যদি প্রধানমন্ত্রী সময় দেন তাহলে ফল প্রকাশ হতে পারে।

এর আগে গত মঙ্গলবার এক ভার্চুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানিয়েছিলেন, বিশেষ পরিস্থিতিতে ফল প্রকাশ করতে গেলে আইনি প্রক্রিয়া হিসেবে রাষ্ট্রপতির অধ্যাদেশ জারি করতে হবে। অধ্যাদেশ জারির পর ফল প্রকাশ করা হবে।

মানোন্নয়নের ফল হবে যেভাবে: এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় মানোন্নয়ন দিতে চাওয়া শিক্ষার্থীদের ফল সাবজেক্ট ম্যাপিং করে দেওয়া হবে। এ ক্ষেত্রে যে বিষয়গুলোতে শিক্ষার্থীরা মানোন্নয়ন দিতে চেয়েছিল, এসএসসি ও জেএসসি পরীক্ষায় সেই বিষয়ে প্রাপ্ত নম্বর যোগ করে তার ফল প্রকাশ করা হবে।

ফল নিয়ে কাজ করা টেকনিক্যাল কমিটির সদস্য ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক এসএম আমিরুল ইসলাম এ কথা বলেন। তিনি বলেন, মানোন্নয়ন দিতে চাওয়া শিক্ষার্থীদেরও জেএসসি এবং এসএসসি পরীক্ষায় ওই বিষয়ের ওপর প্রাপ্ত নম্বর গড় করেই ফল দেওয়া হবে। এ ক্ষেত্রে কারও যদি মানোন্নয়ন দিতে চাওয়া বিষয়টি এসএসসি কিংবা জেএসসিতে না থাকে তাহলে ওই বিষয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য আছে এমন বিষয়ের নম্বর গড় করে তার ফল দেওয়া হবে। তিনি বলেন, যেহেতু ফল নিয়ে সন্তুষ্ট না হওয়াতেই শিক্ষার্থীরা মানোন্নয়ন পরীক্ষা দিতে চায়, সেহেতু মানোন্নয়ন দেওয়া কোনো শিক্ষার্থীরই ফল খারাপ হওয়ার আশঙ্কা নেই। আমরা সেভাবেই ফল তৈরি করার জন্য সফটওয়্যার আপডেট করেছি।

চতুর্থ বিষয়ের নম্বর যোগ করা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, চতুর্থ বিষয়ের নম্বরসহ এইচএসসির ফল প্রকাশ করা হবে। শিক্ষার্থীদের এসএসসি পরীক্ষাতেও ব্যবহারিক বিষয় ছিল। এসএসসিতে ব্যবহারিক বিষয়গুলোর নম্বরসহ ফল প্রকাশ করা হয়েছে। সেই নম্বর অনুযায়ীই এইচএসসি ও সমমানের ফল দেওয়া হবে।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button