আন্তর্জাতিক খবর

গলফ খেলায় ব্যস্ত ট্রাম্প

ক্ষমতার শেষ প্রান্তে এসে অদ্ভুত খেলায় মত্ত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। শেষ ট্রাম্প কার্ডটি খেলার চেষ্টা করছেন ডেমোক্র্যাটদের ঘাড়ে বন্দুক রেখেই। আর তাতে হাউস স্পিকার ন্যান্সি পেলোসির সমর্থনও পেয়ে গেছেন তিনি। করোনাভাইরাসের জেরে জনপ্রতি ৬০০ ডলারের নগদ সাহায্যের দাবির পরিবর্তে ট্রাম্প জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি নগদ দু’হাজার ডলার দিতে ইচ্ছুক। না হলে করোনাভাইরাসের ৯০০ বিলিয়ন ডলারের সাহায্য তহবিলের বিলেও স্বাক্ষর করবেন না বলে হুমকি দিয়েছেন তিনি। এই চালে দুই দলের আইন প্রণেতাদের সমঝোতা ভণ্ডুল করে দেয়ার চতুর চাল চেলেছেন ট্রাম্প। এই ঘোষণা করেই বড়দিনের ছুটিতে ফ্লোরিডায় পাড়ি দিয়েছেন তিনি। ট্রাম্পের পাল্টা প্রস্তাব নিয়ে রিপাবলিকান আইনপ্রণেতারাও একমত নন। উভয় দলের মধ্যেই চেষ্টা চলছে, আপাতত সমঝোতার। সাহায্যের প্যাকেজে যেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প স্বাক্ষর করেন।

জানা গেছে, ফ্লোরিডার মার-আ-লাগো রিসর্টে পাঠানো ফেডারেল সরকার পরিচালনার অর্থ বিল স্বাক্ষর না করে ফেরত পাঠিয়ে দিয়েছেন ট্রাম্প। ফলে মঙ্গলবার থেকে ফেডারেল সরকারের বহু কাজকর্ম বন্ধ হয়ে যাবে বা থমকে যাবে। ফেডারেল সরকার পরিচালনার অর্থ বিল নিয়ে এমন অচলাবস্থা আগেও হয়েছে। কিন্তু এমন পরিস্থিতিতে সমঝোতার জন্য প্রেসিডেন্টসহ আইনপ্রণেতারা সমাধান খোঁজার চেষ্টা করেন। এবারের পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন। নির্বাচনের ফলাফল অনুযায়ী প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প আর কয়েক সপ্তাহ ক্ষমতায় আছেন। ২০ জানুয়ারি দুপুরে নতুন প্রেসিডেন্ট ক্ষমতা গ্রহণ করবেন। অথচ, এখনও নির্বাচনে পরাজয় মেনে নেননি ডোনাল্ড ট্রাম্প। ফলে অবস্থা ক্রমশ জটিল হচ্ছে।

অভিযোগ উঠছে, মার্কিন জনগণকে বিভ্রান্তিতে রেখে ফ্লোরিডার রিসর্টে গলফ খেলায় ব্যস্ত প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। অথচ, ক্রিসমাস উৎসবের ছুটি পেরলেই এক কোটি কর্মহীন মানুষের ভাতা বন্ধ হয়ে যাবে। ফলে মার্কিন মুলুকে এই শীতেও চড়ছে রাজনীতির পারদ।

উল্লেখ্য, চার মাস আলোচনার পর উভয় দলের সমঝোতায় সাহায্য প্যাকেজে মার্কিন কংগ্রেসে ও সিনেটে গৃহীত হয়। ৬০০ ডলারের পরিবর্তে জনগণের জন্য দু’হাজার ডলারের নগদ সাহায্যের প্রস্তাব গত বৃহস্পতিবার খারিজ করেছেন সিনেট রিপাবলিকানরা। তারা প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পকে সমঝোতার বিলেই স্বাক্ষর করার জন্য আহ্বান জানিয়েছেন। কিন্তু প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এরপরই বেঁকে বসেন। রিপাবলিকান আইনপ্রণেতাদের এখন সিদ্ধান্ত নিতে হবে, তারা দলের প্রেসিডেন্টের প্রস্তাবের পক্ষে ভোট দেবেন, না প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিপক্ষে অবস্থান নেবেন।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button