বগুড়া

বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে কর্মবিররতি

বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবীতে বগুড়ায় বাংলাদেশ হেলথ এ্যাসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশনের কর্মবিরতি শুরু।

বেতন বৈষম্য নিরসনের দাবিতে বগুড়ায় অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি শুরু করেছে বাংলাদেশ হেলথ এ্যাসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশন। কেন্দ্রিয় কমিটি ঘোষিত কর্মসুচী অনুযায়ী বৃহস্পতিবার থেকে সারাদেশের ন্যায় বগুড়ার ১২ টি উপজেলায় কর্মবিরতি শুরু করেছে স্বাস্থ্য সহকারীরা। ১৯৯৮ সালে প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা, ২০১৮ সালে স্বাস্থ্যমন্ত্রির ঘোষনা এবং ২০ ফেব্রুয়ারী ২০২০ তারিখে স্বাস্থ্যমন্ত্রির লিখিত প্রতিশ্রুতি, স্বাস্থ্য পরিদর্শক-১১, সহকারি স্বাস্থ্য পরিদর্শক-১২ এবং স্বাস্থ্য সহকারিদের ১৩ তম গ্রেড প্রদান করে নিয়োগবিধি সংশোধন করার দাবিতে এই কর্মবিরতি পালন করছে তারা।

বাংলাদেশ হেলথ এ্যাসিস্ট্যান্ট এসোসিয়েশন বগুড়া সদর উপজেলা শাখার উদ্যোগে সকাল থেকে সদর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার কার্যালয় চত্বরে কর্মবিরতি পালন করা হয়।

এতে বক্তব্য রাখেন সংগঠনের জেলা সভাপতি আজম উদ্দিন, জেলা দাবী বাস্তবায়ন কমিটির আহবায়ক মাসুদ রব্বানী, স্বাস্থ্য সহকারি রওশনারা বেগম, আল রাহিসান, মাইনুল হাসান, শিল্পি বালা রায়, সানজিদা আকতার, শ্যাম সুন্দর, নজরুল ইসলাম। এছাড়া সারিয়াকান্দি উপজেলায় কর্মসূচীতে সংগঠনের জেলা সাধারণ সম্পাদক হাসানুজ্জামান, দাবী বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব আশরাফুল ইসলাম, শাহিনুল ইসলাম, আব্দুল হালিম, ধুনটে আমিনুর রহমান, মিজান, আবু মো: জিহাদ, শিবগঞ্জে শাহ আলম, আপেল মাহমুদ, রায়হানুল ইসলাম, শাজহানপুরে উজ্জল হোসেন, আবু বক্কর, শেরপুরে জাহাঙ্গীর হোসেন, রানা রহমান, সোনাতলায় মোজাহিদুল ইসলাম, আব্দুর রশিদ, কাহালুতে রফি উদ্দিন, উম্মে মোতাহেরা, আদমদীঘিতে শিহাব উদ্দিন, সাখাওয়াত হোসেন, দুপচাঁচিয়ায় শাহিনুর রহমান, এনামুল হক, নন্দীগ্রামে আমকানুল ইসলাম, মইনুল হক, গাবতলীতে মতিউর রহমান, আল আমিন বক্তব্য রাখেন।
বক্তরা দ্রুত তাদের সমস্যা নিরসন ও মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষণা বাস্তবায়নের দাবি জানান। তাদের দাবী বাস্তবায়ন না হওয়া পর্যন্ত কর্মবিরতি চলবে বলে জানান।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button
error: Content is protected !!