Uncategorized

শীতকালে উষ্ণতায় সারাদিন, ত্বকের যত্ন

শীত এলেই যেন ত্বকের এক ভিন্ন রূপ দেখা দেয়। শীত মানেই ত্বকে রুক্ষ মলিন ভাব, ত্বক ফেটে যাওয়া, সেই সঙ্গে শুষ্কতা। তাই এই সময়ে নিতে হবে ত্বকের বাড়তি যত্ন।সাধারণত আবহাওয়ার কারণেই ত্বকের এই অবস্থা হয়, তাই শীতে একটু সতর্ক তো হতেই হবে।

মুখের যত্ন

যাদের মুখের ত্বক বেশি রুক্ষ তারা অয়েলবেইজড ফেসওয়াশ ব্যবহার করতে পারেন, আর তৈলাক্ত ত্বকের জন্য ফোম অথবা জেলবেইজড ফেসওয়াশ ব্যবহার করতে পারেন। প্রতিদিন ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে, যার যার ত্বকের ধরন অনুযায়ী। বেশি রুক্ষ শুষ্ক ত্বকে তেলও ব্যবহার করা যাবে। যেমন অর্গান অয়েল, অলিভ অয়েল, ভিটামিন ই অথবা আলমন্ড (বাদামের তেল)। রুক্ষ ত্বকের জন্য মধুর কোনো জুড়ি নেই। তাই প্রতিদিন ঘরোয়া ফেসপ্যাক হিসেবে খাঁটি মধু ব্যবহার করা যেতে পারে। শীত এলে সানস্ক্রিনের কথা কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না। অবশ্যই প্রতিদিন বাইরে যাওয়ার ১৫-৩০ মিনিট আগে একটা ভালো সানস্ক্রিন ব্যবহার করতে হবে।

হাত-পায়ের যত্ন

গোসলের সময় ত্বককে শুষ্ক করে ফেলে এমন ক্ষারযুক্ত সাবান না ব্যবহার করাই ভালো। এক্ষেত্রে প্রতিদিন গোসলে ক্ষারবিহীন সাবান বা বডিওয়াশ ব্যবহার করুন। গোসলের পর এবং ঘুমানোর আগে অবশ্যই একটা ভালো ময়েশ্চারাইজারযুক্ত বডিলোশন ব্যবহার করতে হবে। এ ছাড়া অলিভ অয়েলও কিন্তু বডিঅয়েল হিসেবে খুবই উপকারী। এখন কিন্তু বাজারে অয়েলমিস্টও পাওয়া যায়। চাইলে সেটাও ব্যবহার করতে পারেন।

ঠোঁটের যত্ন

শীতে ঠোঁট ফাটবে না তা কি হয়? সব কিছুর মধ্যে ঠোঁটের যত্ন নেওয়ার কথা কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না। ঠোঁটের চামড়া উঠলে হাত দিয়ে না টেনে, জিভ দিয়ে না ভিজিয়ে স্ক্র্যাব ব্যবহার করুন। এখন বাজারে ঠোঁটের জন্য ভালো স্ক্র্যাব আছে। যদি না পান তাহলে বাসায় চিনি অথবা চালের গুঁড়া থাকলেও কাজ হয়ে যাবে। এক চামচ চিনি বা চালের গুঁড়ার সঙ্গে সামান্য নারিকেল তেল বা অলিভঅয়েল মিক্স করে ১-২ মিনিট ঠোঁটে স্ক্র্যাব করুন। তারপর ধুয়ে ফেলুন। পার্থক্যটা নিজেই বুঝবেন। ঠোঁটে ভালো পেট্রোলিয়াম জেলি বা লিপ ব্লাম ব্যবহার করুন। ২-৩ ঘণ্টা পর পর যখনই ঠোঁট রুক্ষ লাগবে ব্যবহার করতে পারবেন সুইট আলমন্ড অয়েল বা নারিকেল তেল। এগুলোও কিন্তু ঠোঁটের জন্য ভালো কাজ করে।

খাদ্যাভ্যাস

এতকিছু করে কী হবে যদি খাবারের রুটিন ঠিক না থাকে। আমরা যাই ব্যবহার করি না কেন ত্বক ভেতর থেকে সুন্দর না হলে লাভ কি? শরীর ভেতর থেকে সুস্থ থাকলে ত্বকও থাকবে সুন্দর, উজ্জ্বল আর প্রাণবন্ত। তাই সেই একই কথা- প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন। সুপ, ফলের জুস, গরম দুধ, গ্রিন টি মেনুতে রাখুন। ফল আর শাকসবজি তো খেতেই হবে, সঙ্গে প্রোটিন জাতীয় খাবারও। ফল ও সবজি দিয়ে সালাদ তৈরি করে খেতে পারেন। শীতে ত্বকের রুক্ষতা বেড়ে যায়, তাই খাবারে ফ্যাটি অ্যাসিড রয়েছে এমন জাতীয় খাবারও খেতে হবে যেমন বাদাম, মাছ। একটা ব্যালান্স ডায়েট মেনে চলুন। সুস্থ থাকুন ভালো থাকুন।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button