অন্যান্য

নিপাহ ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়েছে, সতর্ক না হলে মহামারীর আশঙ্কা

বাদুড় থেকে মানুষে আসা নিপাহ ভাইরাস নিয়ে সতর্ক না হলে- মহমারী ঘটতে পারে বলে আশঙ্কা বিশেষজ্ঞদের। কেননা সাম্প্রতিক গবেষণায় দেখা গেছে, নিপাহর সংক্রমণ হার যা ভাবা হতো তার চেয়ে বেশি। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এই শীতে খেজুর গাছের কাঁচা রস পান না করাই ভালো। পাশাপাশি যেসব অঞ্চলে খেজুর রস থেকে বাণিজ্যিকভাবে গুড় উৎপাদন হয়, সেসব জায়গায় নজরদারিও বাড়ানোর পরামর্শ তাদের।

চলমান মহামারীর জন্য দায়ী কোভিড নাইনটিন- কোত্থেকে মানুষ পর্যন্ত এলো তা নির্দিষ্ট করে জানা না গেলেও- বিজ্ঞানীদের ধারণা কোন প্রাণী থেকেই এসেছে এটি। বাদুড় থেকে আসা এমনই আরও একটি ভাইরাস, প্রায় প্রতি বছরই বাংলাদেশসহ এই উপমহাদেশে প্রাণহানি ঘটিয়ে চলছে। সেটি হলো নিপাহ ভাইরাস।

২০০১ সালে বাংলাদেশে প্রথম নিপাহর উপস্থিতি ধরা পড়ে- সে বছর প্রাণ যায় নয় জনের। শেষ দশ বছরে এতে প্রাণ গেছে ১২৯ জনের। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বলছে, নিপাহ ভাইরাসে মৃত্যুর হার ৪০ থেকে ৭৫ শতাংশ এবং এটি করোনার মতোই মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত হয়।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত একটি বিজ্ঞান সাময়িকীতে বিজ্ঞানীরা আশঙ্কা করছেন, বাংলাদেশ, ভারতসহ এশিয়ার কয়েকটি দেশে নিপাহ ব্যাপকভাবে ছড়িয়ে পড়তে পারে। করোনার মধ্যে নিপাহ ছড়িয়ে পড়লে সেটি হবে-আরও ভয়বহ।

এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞদের পরামর্শ- শীতে খেজুরের রস ও আধ খাওয়া ফল না খাওয়া। এছাড়া ফরিদপুর, রাজবাড়ি, কুমিল্লা, যশোর বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদিত গুঁড়ে নজরদারি বাড়ানোর।

করোনার মতোই নিপাহ ভাইরাসেরও কোন প্রতিষেধক আবিস্কৃত হয় নি। তাই এর থেকে সতর্ক থাকার কোন বিকল্প নেই বলে মত দিলেন বিশেষজ্ঞরা।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button
error: Content is protected !!