আদমদিঘী উপজেলা

আদমদীঘিতে স্বামী ও ননদ মিলে গৃহবধূকে পিটিয়ে হত্যা, স্বামী আটক

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার সান্তাহার পৌর শহরের চা-বাগান মহল্লায় পারিবারিক কলহের জেরে স্বামী ও ননদ মিলে বৃষ্টি বেগম (১৯) নামের এক গৃহবধূকে পিটিয়ে ও শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। আজ শনিবার পুলিশ স্বামী রমজান আলীকে গ্রেফতার করলেও পালিয়ে গেছে ননদ স্বপ্না বেগম।

জানা গেছে, শহরের চা বাগান মহল্লায় জনৈক বক্কর আলীর বাড়ির ভাড়াটিয়া রমজান আলী রিক্সা চালানোর অজুহাতে মাদক বিক্রি ও সেবন করতো। এ নিয়ে তার দ্বিতীয় স্ত্রী বৃষ্টির সাথে পারিবারিক কলহ চলে। এর প্রতিবাদ করায় প্রায়ই তাকে স্বামী এবং ননদ মিলে নির্যাতন করে। এরই ধারাবাহিকতায় শনিবার সকালে বৃষ্টিকে নির্মমভাবে নির্যাতন করতে থাকে তারা। মারধরের ফলে তার মৃত্যু হয়। কিন্তু ঘটনাটিকে আত্মহত্যা বলে চালিয়ে দেওয়ার কৌশল হিসাবে স্বামী-ননদ মিলে ওড়না দিয়ে বৃষ্টির গলায় ফাঁস দেয়। এরপর লোক দেখানোর জন্য মৃত বৃষ্টিকে স্থানীয় ক্লিনিকে নিয়ে যায়।
ক্লিনিকের চিকিৎসক জানায়, বৃষ্টি আগেই মারা গেছে। এরপর ভাড়া বাড়িতে নিয়ে আসে। খবর পেয়ে পুলিশ ওই বাড়িতে উপস্থিত হয়। পুলিশ দেখে খুনি রমজান দৌড়ে পালানোর সময় পুলিশ ধরে ফেলে। এসময় ননদ স্বপ্না পালিয়ে যায়। এঘটনায় বৃষ্টির বাবা সাদ্দাম হোসেন বাদী হয়ে আদমদীঘি থানায় মামলা দায়ের করেছেন বলে জানিয়েছেন সান্তাহার পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ আনিসুর রহমান।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button
error: Content is protected !!