সারাদেশ

দেশে ৩ মাসে মোবাইল গ্রাহক ৬১ লাখ বেড়েছে

মাত্র তিন মাসেই দেশে মুঠোফোনের নতুন গ্রাহক ৬১ লাখ। অবিশ্বাস্য হলেও এই সময়ে মুঠোফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর সংখ্যাও বেড়েছে ৭৫ লাখ। করোনা সংকটের মধ্যেই টেলিকম খাতের এমন প্রবৃদ্ধিতে নতুন বাতাস দেশের অর্থনীতিতে।

গেল মার্চে দেশে যখন করোনা হানা দেয়, তখন মুঠোফোনের চার অপারেটরের গ্রাহক ছিলো ১৬ কোটি ৫৩ লাখ। ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহার করছিলেন সাড়ে ৯ কোটি গ্রাহক। এরপরের তিন মাসে অপারেটররা গ্রাহক হারায় ৪১লাখ। আর ইন্টারনেট ব্যবহারকারী কমে দুই লাখ।

এরপর দীর্ঘ লকডাউনে সামাজিক যোগাযোগ, শিক্ষা আর দাপ্তরিক কার্যক্রম প্রায় পুরোটাই নির্ভরশীল হয়ে পরে ইন্টারনেটের উপর। পরিস্থিতি বিবেচনায় গ্রাহক ফেরাতে সর্বনিম্ন রেটে কথা বলা, ফ্রি টকটাইম, কমদামে ইন্টারনেট’সহ নানা অফার দেয়া শুরু করে অপারেটররাও। ফলে জুনের পর থেকে পাল্টে যাচ্ছে পরিস্থিতি। বিটিআরসি বলছে, জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর এই তিনমাসেই মুঠোফোন সংযোগ বেড়েছে ৬১ লাখ আর ইন্টারনেট ব্যবহারকারী বেড়েছে ৭৫ লাখ।

তবে, নতুন টাওয়ার নির্মাণ বন্ধ, আর প্রয়োজনীয় তরঙ্গের অভাবে, এমন ইতিবাচক অবস্থান ধরে রাখা নিয়ে সংশয়ে অপারেটররা। বাংলালিংক’র চিফ কর্পোরেট অ্যান্ড রেগুলেটরি অ্যাফেয়ার্স অফিসার তাইমুর রহমান জানান, এসময়ে বেশ কিছু ডিজিটাল প্রোডাট টফি, সেলফকেয়ার অ্যাপের ব্যবহার বেড়েছে।

রবির করপোরেট ও রেগুলেটরি চীফ শাহেদ আলম বলেন, সরকার এই বিষয়টা গুরুত্ব দিয়ে দেখবেন এবং দ্রুততম সময়ে যেন সাশ্রয়ী মূল্যে স্পেক্ট্রাম দেয়া হয়। তা না হলে গ্রাহক চাহিদা যত বাড়ছে সেভাবে আমাদের সক্ষমতা থাকছে না। এতে গ্রাহক সেবার মান কমে যাচ্ছে।

যদিও নিয়মতান্ত্রিক জটিলতায় এসব সংকটের সমাধান হচ্ছে না এখনই জানিয়ে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন- বিটিআরসি বলছে, কমমূল্যে তরঙ্গ বরাদ্দের কোন সুযোগ নেই তাদের হাতে। সংস্থাটির চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলেন, প্রথম অকশনে (নিলাম) যে দাম উঠেছিল এখন যে কিনবে তাকে সেই দামেই কিনতে হবে। দাম কমানোর সুযোগ নাই। তবে সরকার চাইলে তা করতে পারে।

গ্রাহক অনুপাতে প্রত্যাশিত সেবা প্রদানে ৭৫ মেগাহার্টজ তরঙ্গ দরকার প্রত্যেকটি অপারেটরের। যদি তাদের হাতে আছে মাত্র অর্ধেক।

বিটিআরসি’র তথ্যে দেখা যায়, গেল মার্চে মোবাইল সংযোগ ছিল ১৬ কোটি ৫৩ লাখ আর মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহকের সংখ্যা ছিল ৯ কোটি ৫১ লাখ। এরপরের মাসে এই সংখ্যা ছিল যথাক্রমে ১৬ কোটি ২৯ লাখ ও ৯ কোটি ৩১ লাখ। মে-তে মোবাইল সংযোগ আরও কমে ১৬ কোটি ১৫ লাখে নেমে এলেও মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহক বেড়ে দাঁড়ায় ৯ কোটি ৪০ লাখে। জুনে ১৬ কোটি ১২ লাখ মোবাইল সংযোগ আর ৯ কোটি ৪৯ লাখ মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহক, জুলাই-তে ১৬ কোটি ৪২ লাখ আর ৯ কোটি ৭৮ লাখ, আগস্টে ১৬ কোটি ৬০ লাখ আর ৯ কোটি ৯৬ লাখ, সেপ্টেম্বরে ১৬ কোটি ৭১ লাখ ও ১০ কোটি ২৪ লাখে দাঁড়ায় মোবাইল সংযোগ মোবাইল ইন্টারনেট গ্রাহক সংখ্যা।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button
error: Content is protected !!