নন্দীগ্রাম উপজেলা

নন্দীগ্রামে হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে

বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলায় বেগুনে ফলন ও দাম ভালো পাওয়াতে কৃষকের মুখে হাসি ফুটেছে। এ বছর ফলন ভালো হওয়ায় কৃষকেরা লাভবান হওয়ার পাশাপাশি ঘুরে দাঁড়ানোরও চেষ্টা করছেন।

উপজেলার বিভিন্ন এলাকার মাঠে ঘুরে ও কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, বেগুন চাষে অনেক কৃষকের ভাগ্য বদল হয়েছে। শুরু থেকেই উৎপাদিত বেগুনের দাম বাজারে ভালো পাচ্ছেন চাষিরা। ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত কোদাল, পাচুনসহ আনুষঙ্গিক কৃষি সামগ্রী নিয়ে সবজির ক্ষেত পরিচর্যায় ব্যস্ত থাকেন কৃষকরা। এলাকার কোনো কোনো কৃষক বেগুনের পাশাপাশি সবজির পরিচর্যা করছেন। কেউ কেউ পোকামাকড় দমনে ব্যস্ত সময় পার করছেন। অনেকে সবজির খেতে সেচ দিচ্ছেন। আবার কেউ কেউ খেত থেকে ফুলকপি, বাঁধাকপি, মুলা, বরবটি, শিম, শসাসহ নানা সবজি তুলে আনছেন।

কৃষকরা জানান, শীতকালীন অন্য সবজির পাশাপাশি তারা এবার বেশির ভাগ জমিতে বেগুন চাষ করেছেন। ফলনও ভালো হয়েছে। দামও ভাল পাচ্ছেন। এছাড়া সবজি চাষে ব্যয় অন্য ফসলের তুলনায় অনেক কম। তারা আরও বলেন, ক্ষেতের বেগুন উঠানোর শুরু থেকেই পাইকারি বাজারে প্রতিকেজি ৫৫-৬০ টাকায় বিক্রি করেছেন। আর খুচরা বাজারে প্রতিকেজি ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এতে বেগুন চাষিরা এবার ভালো লাভবান হবেন। বেগুন তাদের ভাগ্যের চাকা অনেকটা ঘুরিয়ে দিয়েছে।

উপজেলার বাদলাশন গ্রামের জালাল উদ্দিন বলেন, তিনি পেশায় জাত কৃষক। তিনি এবার ৫ বিঘা জমিতে বেগুন চাষ করেছেন। প্রতি সপ্তাহে ১’শ মণ করে বেগুন তুলে বিক্রি করেন। তাকে কোন হাটে বা বাজারে নিয়ে যেতে হয় না। ঢাকা থেকে পাইকাররা এসে নিয়ে যান।

তিনি আরও বলেন, এ বছর তার প্রতিবিঘা জমি আবাদের উপযোগী করতে হালচাষ, বীজ, কিটনাশকসহ সবমিলে ব্যয় হয়েছে ৬০ হাজার টাকার মতো। ইতোমধ্যেই তিনি কয়েক দফায় ১ লাখ ২৫ হাজার টাকার অধিক বেগুন বিক্রি করেছেন। আগামীতে আরও অনেক টাকার বেগুন বিক্রি করা যাবে।

এলাকার সবজিচাষি রেজাউল করিম, আবুল ফকিরসহ অনেকে বলেন, এ বছর প্রচুর সবজির আবাদ করেছেন কৃষকেরা। বেগুন, ঝিঙে, বরবটি, লাউয়ের চাষ যাঁরা করেছেন, সবাই লাভবান হচ্ছেন।

এ বিষয়ে নন্দীগ্রাম উপজেলা কৃষি অফিসার মো. আদনান বাবু জানান, এই উপজেলায় কৃষকরা ৪০০ হেক্টর জমিতে বিভিন্ন ধরনের সবজি চাষ করেছেন। এরমধ্যে বেগুন ৭০ হেক্টর জমিতে চাষ করা হয়েছে। একদিকে উৎপাদন খরচ কম অন্যদিকে ভালো বাজার মূল্য কৃষকদের বেগুন চাষে উৎসাহিত করে তুলছে। বেগুন ও মরিচ চাষিরা ভাল লাভবান হচ্ছেন। এছাড়া কৃষি বিভাগ কৃষকদের পাশে থেকে তাদের নিয়মিত নানা পরামর্শ দিয়ে যাচ্ছে।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button