বগুড়া সদর উপজেলা

শহীদ চাঁন্দু স্টেডিয়ামের ইনডোর এখন নির্বাচন কমিশনের গোডাউন!

বগুড়ার শহীদ চাঁন্দু স্টেডিয়ামের ইনডোর পুরোটাই দীর্ঘ এক মাসেরও বেশি সময় ধরে নির্বাচন কমিশনের দখলে রয়েছে। ফলে অনুশীলনের সুযোগ থেকে পুরোপুরি বঞ্চিত ক্রিকেটাররা। জেলা নির্বাচন অফিসের অবহেলায় অনুশীলন বঞ্চিত ক্রিকেটাররা চরম ক্ষুব্ধ। বিশেষ করে প্রমিলা ক্রিকেটারদের অনুশীলনের একমাত্র ভেন্যুটি দীর্ঘ দিন যাবত বেদখল থাকায় চরম ভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে মেয়েরা। জানাগেছে, বগুড়া-৬ (সদর) আসনের উপ-নির্বাচন উপলক্ষে গত জুন মাসের ২২ তারিখে জেলা নির্বাচন অফিস জেলা ক্রীড়া সংস্থা বরাবর লিখিত আবেদন করে। তারা নির্বাচনী সামগ্রী রাখার জন্য সপ্তাহ খানেক সময়ের জন্য স্টেডিয়ামের ইনডোর ব্যবহারের অনুমতি চায়। ক্রিকেটারদের অনুশীলন ক্ষতিগ্রস্ত হবে জেনেও নির্বাচন কমিশনের আবেদনে ইতিবাচক সাড়া দেয় জেলা ক্রীড়া সংস্থা। কিন্তু নির্বাচনের পর দীর্ঘ একমাস পেরিয়ে গেলেও আজ অবধি সব মালামাল ইনডোরেই রয়ে গেছে। তিনজন পুলিশ সদস্য সার্বক্ষণিক এসব মালামাল পাহারার দায়িত্ব পালন করছেন। দূযোর্গপূর্ণ আবহাওয়ার কারনে যখন ক্রিকেটারদের অনুশীলনের একমাত্র ভরসা ইনডোর বেদখল থাকায় ক্রিকেটাররা অনুশীলনের সুযোগ পাচ্ছেন না। ফলে তরুণ ক্রিকেটাররা ফিটনেস সহ সার্বিক দিকে থেকে পিছিয়ে যাচ্ছে। ক্রিকেট কোচ মোসলেম উদ্দিন আফসোস করে বললেন, “বগুড়ার তিনটি মেয়ে বর্তমানে জাতীয় প্রমিলা দলে খেলছে। আরও বেশ কয়েখজন মেয়ে জাতীয় দলের দরজায় কড়া নাড়ছে। এসব মেয়েরা এই ইনডোরে নিয়মিত অনুশীলনের মাধ্যমে নিজেদেরকে তৈরি করছে। দীর্ঘ একমাস যাবত ইনডোর বন্ধ থাকায় এসব মেয়েদের অনুশীলন বন্ধ রয়েছে। একই সাথে দুর্যোপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে ছেলেদের অনুশীলনও বন্ধ রয়েছে।” তিনি ক্রিকেটারদের স্বার্থে দ্রুততম সময়ে নির্বাচনী মালামালগুলো সরিয়ে নেয়ার দাবি জানান। এদিকে, দীর্ঘ একমাস যাবত ইনডোর দখল করে নির্বাচনী মালামাল জমা করে রাখায় ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা ক্ষোভ জানিয়েছেন। তারা অভিযোগ করেন, জেলা নির্বাচন অফিসের গাফিলতির কারণেই দীর্ঘ দিন যাবত ক্রিকেটাররা অনুশীলন বঞ্চিত রয়েছে। এই দীর্ঘ সময়ে ক্রিকেটাররা অপুরণীয় ক্ষতির সম্মুখীন হয়েছে। এবিষয়ে বগুড়া জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মাহবুব আলম শাহ্ জানান, “নির্বাচন কমিশনের নির্দেশেই মালামালগুলো এতদিন সরানো সম্ভব হয়নি। কয়েকটি ইউনিয়নে উপ-নির্বাচন থাকায় একটু বেশি দেরি হয়ে গেছে। আগামী সপ্তাহে সব মালামাল সরিয়ে ইনডোর ছেড়ে দেয়া হবে।” মোস্তফা মোঘল, দৈনিক সংগ্রাম

বিজ্ঞাপন

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button
ভাষা নির্বাচন