উপজেলাকাহালু উপজেলাদুপচাঁচিয়া উপজেলা

ইতিহাস অলিম্পিয়াডে তৃতীয় হলেন বগুড়ার সন্তান রাহুল

‘নিজের শেকড়কে জানো, নিজেকে সমৃদ্ধ করো’ স্লোগানে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস অলিম্পিয়াড অনুষ্ঠিত হলো গতকাল শুক্রবার। ঢাকা বিভাগের সকল জেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের তৃতীয় থেকে দ্বাদশ শ্রেণির প্রায় ১০০০ শিক্ষার্থী এই অলিম্পিয়াডে অংশ নেয়। মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক সংগঠন মুক্ত আসরের তত্ত্বাবধানে বাংলাদেশ ইতিহাস অলিম্পিয়াড কমিটি এই আয়োজন করে।

বিজ্ঞাপন

সকাল ১০টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অ্যান্ড কলেজে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। দুপুর ১২টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের জহির রায়হান মিলনায়তনে শুরু হয় আলোচনা সভা। এর আগে সকাল সাড়ে ৯টায় জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় স্কুল অ্যান্ড কলেজ প্রাঙ্গণে এই অলিম্পিয়াডের উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ ইতিহাস অলিম্পিয়াডের পতাকা উত্তোলন করেন কমিটির সভাপতি ও প্রখ্যাত কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন জাতীয় পতাকা উত্তোলন করেন এবং অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

এই অলিম্পিয়াডের উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ে তৃতীয় স্থান অধিকার করেছে বগুড়া জেলার দুপচাঁচিয়া উপজেলার সন্তান ও ইউনিভার্সিটি ল্যাবরেটরী স্কুল এ্যান্ড কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্র আরিফ ইশতিয়াক রাহুল। সে ২০১৭ সালে বগুড়ার কাহালু সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরিক্ষায় জিপিএ ৫ পেয়ে উত্তীর্ণ হয়। প্রথম বারের মতো ইতিহাস অলিম্পিয়াডে অংশ নিয়ে তৃতীয় হওয়ার পর তার অনুভূতি জানতে চাইলে বলে, ‘বিজয়টা সব সময়ই আনন্দের। খুব ভালো লাগছে। অলিম্পিয়াডে রেজিস্ট্রেশন করার পর থেকেই প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করেছি। আর ইতিহাস তো সব সময় পড়াই হয়। কারণ এটি আমার পাঠ্য বিষয়ও।’ ইতিহাসের প্রতি ভালোলাগার শুরু কবে থেকে তা জানতে চাইলে সে জানায়, ‘ছোটো বেলা থেকেই বাবা-মা নানা রকম ইতিহাসের ঘটনা শোনাতেন। আর আমার দাদা একজন মুক্তিযোদ্ধা হওয়ার কারণে তার কাছে মুক্তিযুদ্ধের নানা ইতিহাস শুনেছি ছোটোবেলা থেকে। এভাবেই ধীরে ধীরে ইতিহাসের প্রতি ভালোলাগা ও ভালোবাসা তৈরী হয়েছে।’

আরিফ ইশতিয়াক রাহুল

উল্লেখ্য যে, প্রত্যেক বিভাগীয় পর্যায়ে বিজয়ীরা ইতিহাস অলিম্পিয়াডের জাতীয় পর্যায়ে অংশগ্রহণের সুযোগ পাবে।

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button
ভাষা নির্বাচন