আদমদিঘী উপজেলাউপজেলা

আদমদীঘিতে বাণিজ্যিকভাবে কচুচাষ করে লাভবান কৃষকরা

বগুড়ার আদমদীঘি উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে কচু চাষে কৃষকরা ঝুঁকে পড়েছেন। কচু এমন একটি সবজি যার লতি, ডাটা, কচুপাতা ও মোচা সমাজের প্রতিটি মানুষের একটি সুষম ও পুষ্টিভরপুর খাবার সবজি।
কম খরচে বেশি লাভ তাই কৃষকরা ব্যবসায়ীক ভাবে কচুচাষ শুরু করেছেন। বাজারে অন্যান্য সাক-সবজির সাথে সমান তালে কচু বিক্রি হয়। চিকিৎসকদের মতে শারীরিক দূর্বলতা কিংবা যে কোন ভিটামিনের ঘাটতি দেখা দিলে এই কচু শাক খেলে দ্রত উপকার পাওয়া যায়। গ্রামাঞ্চলে সন্তান ভুমিষ্ট হওয়া প্রসূতি মায়েরা তাদের স্বাস্থ্য পুনঃ উদ্ধারের জন্য কচু শাক খেয়ে থাকেন। কচু শাকে সকল প্রকার ভিটামিন বিদ্যমান থাকায় এটা খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য দুর ও হজম শক্তিবৃদ্ধিতে সহায়তা করে। গ্রামাঞ্চলে সর্বত্রই ইলিশ মাছ ও ছোট চিংড়ি মাছ দিয়ে কচু ঘাটি আজও সমাদৃত রয়েছে।

আদমদীঘি উপজেলা কৃষি অধিদপ্তর সূত্রে জানাযায়, অত্র উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ১০ হেক্টর জমিতে ব্যবসায়ীক ভাবে মুখিকচু ও গোড়া কচুর আবাদ করা হয়েছে। বাজারে কচুর নানী ও কচুবৈ হিসাবে মুখিকচু হিসাবে আর কচুর মোচা লতি, ডাটা ও পাতা গোড়াকচু হিসাবে বিক্রি হয়ে থাকে।
পঁচনশীল নয় ও কচু উৎপাদনে খরচ অনেক কম অথচ লাভ বেশি হওয়ায় কৃষকরা দিনদিন কচুচাষে আগ্রহি হয়ে উঠছে।

বিজ্ঞাপন

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button