নন্দীগ্রাম উপজেলা

নন্দীগ্রামে নববধূকে(১৫) গলাটিপে ও বুকে পা চাপা দিয়ে হত্যা

বগুড়ার নন্দীগ্রামে নববধূ ফারজানা খাতুনকে (১৫) গলাটিপে ও বুকে পা চাপা দিয়ে হত্যার পর, বাড়ির পাশের ড্রেনে ফেলে রাখা হয় বলে স্বীকার করেছে তার স্বামী গোলাম রব্বানী রকি (২২)। সোমবার সন্ধ্যায় জেলার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট খালিদ হাসান খানের আদালতে ১৬৪ ধারায় এ স্বীকারোক্তি দেয় রকি। পরে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়।

স্বীকারোক্তিতে রকি জানায়, সাত মাস আগে প্রথম স্ত্রী রকিকে তালাক দিয়ে চলে যায়। এক মাস আগে ফারজানাকে বিয়ে করে সে। বিয়ের পর ফারজানা বগুড়া শহরে তার আগের প্রেমিকের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতো। এ নিয়ে সংসারে অশান্তি দেখা দেয়। সোমবার সকালে তাদের মধ্যে ঝগড়া হয়। একপর্যায়ে ক্ষিপ্ত হয়ে হত্যার পরিকল্পনা করে রকি। বাড়ির বাইরে নিয়ে গলাটিপে ও বুকের ওপর পা চাপা দিয়ে ফারজানাকে হত্যা করা হয়। এরপর লাশ ড্রেনে ফেলে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে বাড়ি থেকে পালিয়ে যায় সে।

নন্দীগ্রাম থানার ওসি শওকত কবীর জানান, স্বীকারোক্তি রেকর্ডের পর আদালতের নির্দেশে রকিকে বগুড়া জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button