স্পোর্টস আইটেম

বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়ে প্রথম হলেন বগুড়ার ছেলে সাজ্জাদ

কক্সবাজারের টেকনাফের শাহপরীর দ্বীপ থেকে সেন্টমার্টিনের বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়েছেন একসঙ্গে ৩৪ জন সাঁতারু। দুই নারী, এক প্রতিবন্ধী বৃদ্ধ ও ডাকসুর নবনির্বাচিত এক সদস্যও রয়েছেন তাদের মধ্যে। তবে সবচেয়ে কম সময়ে এটি পাড়ি দেওয়ার গৌরব অর্জন করেছেন সাজ্জাদ হোসেন। ২ ঘণ্টা ৫৫ মিনিট ৫১ সেকেন্ড সাঁতরে ১৬ দশমিক ১ কিলোমিটার সমুদ্রপথ পাড়ি দিয়ে সেন্টমার্টিনে পৌঁছেন তিনি। এ সময় দ্বীপের বাসিন্দারা ফুল দিয়ে অভিনন্দন জানান তাকে।

বিজ্ঞাপন

আয়োজক ও দ্বীপের বাসিন্দারা জানান, দুপুর ১২টা ৩৫ মিনিটে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়ে দ্বীপে প্রথম পৌঁছেন ২৬ বছর বয়সী বগুড়ার ছেলে মোহাম্মদ সাজ্জাদ হোসেন। এটা পাড়ি দিয়ে তিনি ইতিহাসের পাতায় নাম লিখিয়েছেন। সবচেয়ে কম সময়ে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দেওয়ার গৌরবও অর্জন করেন তিনি।

সাজ্জাদ ছাড়াও একই গ্রামের মোহাম্মদ নয়ন ৩ ঘণ্টা ২৮ মিনিটে পাড়ি দিয়ে দ্বিতীয় হয়েছেন। তারা দু’জনই বগুড়া সরকারি কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্র। ৩ ঘণ্টা ৪৪ মিনিটে পাড়ি দিয়ে তৃতীয় হয়েছেন সাইফুল ইসলাম রাসেল। দ্বীপে পৌঁছে প্রথম হওয়া সাজ্জাদ বলেন, ‘বিশ্ব জয়ের স্বপ্ন দেখছি আমি। আমার টার্গেট ছিল যে কোনো মূল্যে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দিয়ে জয়ের স্বাদ নিতে হবে আমাকে। আল্লাহ আমার সেই আশা পূরণ করেছেন। আগামীতে আরও বড় বড় অ্যাডভেঞ্চারে অংশ নিতে চাই। এ জন্য সরকার ও বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের সহযোগিতা কামনা করছি।

‘ উল্লেখ্য, ২০০৬ সালের ১৪ জানুয়ারি বাংলা চ্যানেলের যাত্রা শুরু হয়। মূলত এটির স্বপ্নদ্রষ্টা ছিলেন বিখ্যাত আন্ডারওয়াটার ফটোগ্রাফার ও স্কুবা ডাইভার প্রয়াত কাজী হামিদুল হক। তার তত্ত্বাবধানেই প্রথমবারের মতো ফজলুল কবির সিনা, লিপটন সরকার এবং সালমান সাঈদ ২০০৬ সালে বাংলা চ্যানেল পাড়ি দেন। এরপর প্রতিবছরই এ আয়োজন হচ্ছে। আস্তে আস্তে জাতীয় এবং আন্তর্জাতিকভাবে পরিচিতি পাচ্ছে এটি।

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button