বগুড়া সদর উপজেলা

বগুড়া দর্জিপাড়ার প্রায় দুই হাজার দর্জি শ্রমিক এখন ব্যস্ত ঈদের পোশাক তৈরিতে

বগুড়া দর্জিপাড়ার প্রায় দুই হাজার দর্জি শ্রমিক এখন ব্যস্ত ঈদের পোশাক তৈরিতে। টেইলার্সগুলোতে এখন অর্ডার ও কাজের চাপ বেড়েছে তিনগুণ। কাজের পারিশ্রমিক বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলন করে শ্রমিকেরা।

বিজ্ঞাপন

সেই আন্দোলনে ওঠে আসা দাবি নিয়ে বগুড়া জেলা দর্জি শ্রমিক ও মালিক পক্ষ বৈঠক শেষে সমঝোতা হওয়ায় ৩০ মে থেকে কাজে ফিরেছেন দর্জি শ্রমিকেরা। এতে করে আবার কাজ শুরু হওয়ায় টেইলার্সগুলোতে ব্যস্ততা বেড়েছে। তারা নতুন করে কাপড় তৈরির অর্ডার নেয়া শুরু করেছেন। নতুন করে পোশাক তৈরির মজুরি বৃদ্ধি পেয়েছে।

বগুড়ায় এখন একটি শার্ট তৈরির জন্য ৩০০ থেকে ৩৮০ টাকা মজুরি দিতে হচ্ছে। প্যান্ট তৈরির ক্ষেত্রে দিতে হচ্ছে ৩৫০ থেকে ৫০০ টাকা। লেডিস টেইলার্সগুলোতে সাধারণ মানের জামা তৈরিতে সর্ব নিম্ন ৩০০ টাকা মজুরি দিতে হচ্ছে। এ ছাড়া লেডিস টেইলার্সগুলো ডিজাইনের ওপর ইচ্ছে মতো মজুরি ধরছে। মজুরিও ঠেকছে না গ্রাহকদের কাছে।

বগুড়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) সনাতন চক্রবর্তীর মধ্যস্থতায় দ্বিতীয় দফায় তার কার্যালয়ে বগুড়া জেলা দর্জি মালিক সমিতির নেতারা ও শ্রমিক সমিতির নেতাকর্মীদের নিয়ে সমঝোতা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সভায় শ্রমিক নেতাদের দাবি দাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মালিক পক্ষের সাথে আলোচনা করে তিন বছরের জন্য একটি নির্দিষ্ট মজুরি কাঠামো বেঁধে দেন শ্রমিকদের জন্য যা আগামী ২০২১ সালের ২৬ মে পর্যন্ত কার্যকর থাকবে। সভায় উভয় পক্ষের সম্মতিক্রমে সিদ্ধান্ত হয় মেয়াদ পূর্ণ হওয়ার আগ পর্যন্ত শ্রমিক পক্ষ আর মজুরি বৃদ্ধির জন্য কোনো আন্দোলন করতে পারবে না এবং মালিক পক্ষও চুক্তির শর্ত মতে শ্রমিকদের বেতনভাতা পরিশোধ করবে।

বগুড়া জেলা দর্জি শ্রমিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সফিকুল ইসলাম জানান, পুলিশ কর্মকর্তার মধ্যস্থতায় মালিক পক্ষ আমাদের দাবি-দাওয়া মেনে নিয়েছে এবং তিন বছরের জন্য চুক্তি করেছে। তাই আমরা আমাদের কর্মবিরতির সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে আবার কাজে যোগ দিয়েছি।

বগুড়া শহরের নিউমার্কেট এলাকার স্বনামধন্য রাব্বি টেইলার্সের স্বাধিকারী রঞ্জু ইসলাম জানান, শ্রমিকরা কর্মবিরতি প্রত্যাহার করায় আবার কাজ শুরু হয়েছে। আগে অর্ডার নেয়া কাজ এবং নতুন অর্ডারের কাজও দ্রুত সম্পন্ন করে যথাসময়েই গ্রাহকের হাতে তুলে দেয়া হবে। যে ভাবে চাপ বাড়ছে তাতে করে দুই-এক দিনের মধ্যে নতুন করে অর্ডার নেয়া যাবে না।

 

আবুল কালাম আজাদ

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button