বগুড়া সদর উপজেলা

বগুড়া শহরে যানজট নিয়ন্ত্রণ, মাদক ও ছিনতাইকারীদের নির্মূলে পুলিশের পদক্ষেপ

বগুড়া লাইভ: রমযানে বগুড়া শহরে যানজট নিয়ন্ত্রণ এবং মাদক ও ছিনতাইকারীদের নির্মূলে পুলিশ আরও কঠোর হচ্ছে। রোববার কমিউনিটি পুলিশিং জেলা সমন্বয় কমিটির সভায় এমনই ইঙ্গিত দিয়েছেন ওই সংগঠনের প্রধান উপদেষ্টা বগুড়ার পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঞা। তিনি জানান, যানজট নিরসনে এখন থেকে রে-কার ব্যবহার করা হবে। তিনি বলেন, ‘সবার সহযোগিতা পেলে মাদকের গডফাদার ও ছিনতাইকারীদের এমন শাস্তির আওতায় আনা হবে হবে যাতে তারা সারাজীবন মনে রাখে যে, এটা জঘন্যতম অপরাধ।’

বিজ্ঞাপন

বগুড়া পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সভায় সভাপতিত্ব করেন কমিউনিটি পুলিশিং এর জেলা সমন্বয় কমিটির সভাপতি দৈনিক করতোয়া সম্পাদক মোজাম্মেল হক লালু। প্রধান অতিথি ছিলেন পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঞা। সভায় ওই সংগঠনের জেলা ও শহর কমিটির শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। উপস্থিত সদস্যদের প্রায় সকলেই শহরে যানজট বৃদ্ধি, মাদকের বিস্তার এবং ছিনতাইকারীদের বেপরোয়া হওয়ার কথা জানিয়ে এ বিষয়ে পুলিশের কঠোর হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

বিজ্ঞাপন

কমিউনিটি পুলিশিংয়ের সদস্যরা শহরের দত্তবাড়ি, কাঁঠালতলা, সুত্রাপুর, ঠনঠনিয়া পপুলারের সামনে, ডক্টরস ক্লিনিকের সামনে, বনানী ও  চেলোপাড়াকে যানজট পয়েন্ট হিসেবে উল্লেখ করে বলেন, রমযান মাসে তা আরও ভয়াবহ রূপ নিয়েছে। তারা এই অবস্থা থেকে উত্তরণে পুলিশকে আরও কার্যকর ভূমিকা রাখার আহবান জানান।

কমিউনিটি পুলিশিংয়ের এক মহিলা সদস্য অভিযোগ করেন, টহল পুলিশকে রাত ২টার পর আর খুঁজে পাওয়া যায় না। এ কারণে ছিনতাইকারীরা সুযোগ পাচ্ছে। ছিনতাই প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে কমিউনিটি পুলিশিংয়ের জেলা সমন্বয় কমিটির সদস্য সচিব শাহাদৎ আলম ঝুনু দুর্বৃত্তদের তাৎক্ষণিক বিচারের অনুরোধ জানান। তিনি বলেন, তাৎক্ষনিক বিচার করা গেলে ছিনতাইকারীদের তৎপরতা অনেক কমে আসবে।
সভায় অংশগ্রহণকারী সদস্যরা মাদকের গডফাদারদের বিরুদ্ধে পুলিশকে আরও কঠোর হওয়ার আহবান জানান।

এ প্রসঙ্গে কমিউনিটি পুলিশিংয়ের শহর কমিটির আহবায়ক আমিনুল ফরিদ শহরের কেন্দ্রস্থল সাতমাথায় দু’টি মাদকের দোকান রয়েছে অভিযোগ করে সেগুলো তুলে দেওয়ার আহবান জানান। তিনি বলেন, যেহেতু বগুড়ায় এখন বার রয়েছে সেহেতু সাতমাথা থেকে মদের দোকান উঠিয়ে দেওয়া উচিত।

সভায় পুলিশ সুপার আলী আশরাফ ভুঞা মাদক ব্যবসায়ী এবং ছিতাইকারীদের বিরুদ্ধে সাম্প্রতিককালে পুলিশের নেওয়া নানা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন। তিনি কমিনিউটি পুলিশিংয়ের প্রতিটি সদস্যকে মাদক বিক্রেতাদের নামগুলো তাঁর ফেসবুক আইডির (SP Ali Ashraf) ইনবক্সে লিখে দেওয়ারও আহবান জানিয়েছেন।

এ বিভাগের অন্য খবর

Back to top button