জাতীয়

চলনবিলে চলছে মাছ ধরার উৎসব

চলনবিলে চলছে মাছ ধরার ধুম। দল বেঁধে মাছ শিকারের এই আয়োজনের নাম ‘বাউত উৎসব’। তবে দিন দিন বিলের আয়তন কমে যাওয়ায় মিলছে না আগের মতো দেশীয় প্রজাতির মাছ।

ভোরের আলো ফুটতেই পলো, বিভিন্ন ধরনের জাল নিয়ে বিল অভিমুখে বিভিন্ন বয়সী মানুষের ঢল নামে। চলনবিলাঞ্চলে এমন উৎসব কয়েকশ’ বছরের। দল বেঁধে মাছ ধরার এ আয়োজনে মৎসশিকারীদের বলা হয় বাউত। তাদের ঘিরেই উৎসবের নামকরণ। শনি ও মঙ্গলবার ভোর থেকে বিলাঞ্চলে দল বেঁধে মাছ শিকারে নামেন বাউতেরা।

মাছশিকারীরা জানান, এ বছর বিলে একেকজন গড়ে ১০ কেজি করে মাছ পেয়েছে। তবে কে কি পেলো, তার চেয়ে দল বেঁধে মাছ শিকারে আনন্দই তাদের বড় পাওয়া।

এলাকাবাসীরা জানান, এটা ভাই শখের জিনিস, মাছ পাবো কি পাবো না সেটা হচ্ছে আলাদা কথা। মাছ খাওয়া তো বড় বিষয় নয়, মারাটাই খুব আনন্দ। আমরা আশা করি এই ঐতিহ্য সারাজীবন যেন থেকে যায়।

মৎস্য কর্মকর্তারা বলছেন, ঐতিহ্য ধরে রাখতে আর মাছের প্রজনন বাড়াতে বিলে মাছের অভয়াশ্রম গড়ে তোলার কাজ চলছে।

চাটমোহর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: সৈকত ইসলাম বলেন, এটি আমাদের সরকারি পৃষ্ঠপোষকতা পেতে পারে এবং এই উৎসবের কথা পুরো বাংলাদেশের মানুষ পারে তার ব্যবস্থা নেয়া হবে।

পাবনা জেলা মৎস্য দপ্তরের সিনিয়র সহকারি পরিচালক মো: আয়নাল হক বলেন, এটাকে যদি অভয়াশ্রম করতে পারি সেক্ষেত্রে কিন্তু মাছের উৎপাদন বাড়বে এবং লোকজনও সেখান থেকে বিভিন্ন ধরনের মাছ আহরণ করতে পারবে।

বাউত উৎসব কার্তিক মাসের শেষে শুরু হয়ে বিলে পানি থাকলে চলে পৌষ পর্যন্ত।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button
error: Content is protected !!