স্বাস্থ্য

জ্বর সারাতে যে খাবারগুলো খুবই কার্যকারী ও সহায়ক

বর্ষার মৌসুমে জ্বর চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। অনেকেই জ্বরকে খুব একটা আমল দিতে চায় না। জেনে রাখুন, জ্বর অসুখ না হলেও কিন্তু অসুখের লক্ষণ। তাই জ্বর হলে অবহেলা মোটেও ঠিক না। জ্বরের হলে অনেক বেশি কাজে দেয় ঘরোয়া পথ্য ও সেবা।

চলুন জেনে নিই এমন কিছু খাবার, যেগুলো জ্বরের জন্য খুবই উপকারী।

আদা দিয়ে তৈরি চাঃ
চা অথবা গরম পানিতে লেবু মিশিয়ে আদা কুচিকুচি করে দিয়ে খেতে পারেন। এটি ব্যাকটেরিয়াজনিত ইনফেকশনের সঙ্গে লড়াই করে। এছাড়াও আদা বা চায়ে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট মস্তিষ্কে স্ট্যেমিনা প্রদান করে। ফলে শরীরের দুর্বলতা কমে যায়।

চিকেন স্যুপ আদর্শ খাবারঃ
জ্বরের মাঝে চিকেন স্যুপ একটি আদর্শ খাবার। এটি শুধু জ্বর সারাতেই নয়, শরীরের বল যোগাতেও সাহায্য করে। বেশি করে আদা ও গোল মরিচ দিয়ে চিকেন স্যুপ পান করলে জ্বরে উপকার পাওয়া যায়। অনেকেরই জ্বরের কারনে মুখের রুচি চলে যায়। ফলে তারা কোন ধরনের খাবার খেতে পারেনা বা খেতে গেলেই বমি বমি ভাব হয়। তাদের জন্য এই সময়ে খাবারের বিকল্প হতে পারে চিকেন স্যুপ।

তুলসীপাতার গুণাগুণঃ
আমাদের দেশের অন্যতম এই পরিচিত গাছটি জ্বর মোকাবেলায় অত্যন্ত কার্যকর। ১ চা চামচ জিরা এবং ৪-৬টা তুলসীপাতা এক গ্লাস পানিতে নিয়ে সিদ্ধ করে সেখান থেকে প্রতিদিন দুইবার ১ চা চামচ করে খেলে জ্বর দ্রুত কমবে। তুলসী পাতার গুণাগুণ জ্বরের বিরুদ্ধে খহব ভালো কাজ করে।

মৌসুমি ফলমূলঃ
বাজারে পাওয়া যায় প্রচুর ফলমূল। মৌসুমী এই ফলগুলো খেতে যেমন সুস্বাদু তেমনি গুণাগুণ সমৃদ্ধ। মৌসুমি ফলে থাকে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টি অক্সিডেনট, যেগুলো জ্বর সারানোর জন্য কার্যকর।

চালের সুজি আর সবজিঃ
পুর্বেই বলেছি জ্বরের সময় অনেকের খাবারের প্রতি রুচি চলে যায়। ফলে তারা খাবার খেতে পারেন না। তাই জ্বরের সময় আরেকটি উপকারী খাবার হলো চালের সুজি, সঙ্গে সামান্য আদাকুচি ও সিদ্ধ করা সবজি।

তাছাড়া জ্বরে আক্রান্ত রোগীর জন্য কিশমিশ একটি উপকারী খাবার। কিশমিশে আছে ভিটামিন-সি ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, যা দ্রুত জ্বর সারাতে সাহায্য করে। যে খাবারগুলো জ্বরের মধ্যে বেশ ভালো কাজ করে জ্বরকে দ্রুত নিরাময় করতে তার মধ্যে রয়েছে শিং ও মাগুর মাছের ঝোল। জ্বরের মাঝে দ্রুত সুস্থ হতে ও শক্তি ফিরে পেতে দেশি শিং ও মাগুর মাছের ঝোল একটি আদর্শ খাবার।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button
error: Content is protected !!