বগুড়া সদর উপজেলা

বগুড়ার কর্মহীন মানুষের দুঃসময়ের কান্ডারী সিআইপি মিলন

সারা পৃথিবী করোনা ভাইরাসের কারণে আজ বিপর্যয়ের মুখে। বাংলাদেশেও পড়েছে এর ব্যাপক প্রভাব। করোনার কারণে কর্মক্ষম অসহায় দরিদ্র মানুষগুলো আজ কর্মহীন হয়ে ঘরে বন্দী। ফলে নেই কোন আয়ের উৎস। জীবন যেন আজ জেলখানায় তালাবন্ধ।

এমন দূর্বিষহ অবস্থায় দেশরত্ন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে বগুড়ায় খেটে খাওয়া, দিনমজুর, দুস্থ ও কর্মহীন হয়ে পরা পরিবারের মাঝে ৭ দিনের খাদ্য সামগ্রী ঘরে ঘরে পৌঁছে দেওয়ার কার্যক্রম শুরু করেছে বগুড়া চেম্বার অফ কমার্সের সভাপতি ও জেলা আওয়ামীলীগের অর্থ বিষয়ক সম্পাদক মাসুদুর রহমান মিলন (সিআইপি)।

পিতার আদর্শে বেড়ে ওঠা মিলন সব সময় মানুষকে সহযোগিতার চেষ্টা করেন। দেশের এই সংকটময় সময়ে তিনি অসহায় ও দুস্থ মানুষদের সহযোগিতা করে যাচ্ছেন। তিনি চেম্বার অফ কর্মাসের সভাপতির পাশাপাশি বিভিন্ন সামাজিক দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। নিজেকে আড়াল করেই তিনি সবসময় বগুড়ার অসহায় মানুষের পাশে থাকার চেষ্ঠা করেন।

কে এই দুঃসময়ের কান্ডারী মাসুদুর রহমান মিলন?

মাসুদুর রহমান মিলন হলেন বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগ ও চেম্বার অব কমার্সের সভাপতি, প্রবীণ রাজনীতিবিদ, বগুড়ায় স্বাধীনতার প্রথম পতাকা উত্তোলনকারী প্রয়াত মমতাজ উদ্দিনের ছেলে। তার বাবা মমতাজ উদ্দিনও একাধিকবার সিআইপি মনোনীত হয়েছিলেন। বগুড়া অঞ্চলের পরপর ১০ বার সেরা করদাতা মাসুদুর রহমান মিলন জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

তার ব্যক্তিগত উদ্যোগে গত ১ তারিখ থেকে ৬ হাজার কর্মহীন পরিবারের মাঝে ৭ দিনের খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দেয়ার কার্যক্রম শুরু হয়েছে।
বৃহস্পতিবার মাসুদুর রহমান মিলন (সিআইপি) উদ্যোগে বগুড়া শহরের বিভিন্ন স্থানে চেম্বার অফ কমার্সের পরিচালকদের মাধ্যমে ৩ হাজার কর্মহীন পরিবারের মাঝে ৫ কেজি চাউল, ১ কেজি ডাল, ২ কেজি আলু ও নগদ অর্থ বিতরণের কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

ইতিপূর্বে মাসুদুর রহমান মিলন (সিআইপির) নিজস্ব উদ্যােগে বিভিন্ন মাধ্যমে চলতি মাসের ১ তারিখ থেকে বগুড়া শহরের বিভিন্ন স্থানে কর্মহীন হয়েপড়া কর্মহীন ৩ হাজার পরিবারের মাঝে একইভাবে খাদ্য সহযোগিতা ও নগদ অর্থ ঘরে ঘরে পৌঁছে দিয়েছেন। কার্যক্রমটি এখনও অব্যাহত রয়েছে।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button
error: Content is protected !!