জাতীয়

বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী এবং জাতীয় শিশু দিবসে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় তার সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার সকাল সোয়া ১০টার দিকে তারা বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন। কিছু সময় নীরবে দাঁড়িয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানান তারা। পরে সমাধি কমপ্লেক্সে সুরা ফাতেহা ও মোনাজাত করা হয়।

এর আগে সকাল ৯-৫৫ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার বোন শেখ রেহানা ও পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধ কমপ্লেক্সে প্রবেশ করেন। তারও আগে ৯টা ৫০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী ঢাকা থেকে হেলিকপ্টারে করে টুঙ্গিপাড়া হেলিপ্যাডে নামেন। কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতারা তাকে স্বাগত জানান।

সকাল ১০টা ১৫ মিনিটে রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে প্রবেশ করেন এবং ১০-১৭ মিনিটে প্রথমে রাষ্ট্রপতি ও পরে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধুর সমাধিসৌধে পুস্পস্তবক অর্পন করে শ্রদ্ধা জানান। এরপর ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাত করে শ্রদ্ধা জানান। পরে আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসেবে শেখ হাসিনা আরেকবার বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে পুষ্পমাল্য অর্পন, ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ মোনাজাত করে শ্রদ্ধা জানান।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর ছোট বোন শেখ রেহানা, মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ পুতুল, রেদোয়ান সিদ্দিকী ববি, স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী, আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, আমির হোসেন আমু, ফারুক খান, জাহাঙ্গীর কবির নানক, হাসান মাহামুদ, ড. আব্দুর রাজ্জাক, আকম মোজাম্মেল হক, আসাদুজ্জামান খান কামাল, ডা. দীপু মনি, মতিয়া চৌধুরী, জুনায়েদ আহম্মেদ পলক, আবুল হাসনাত আব্দুল্লাহ, শেখ হেলাল উদ্দিন, শেখ সালাউদ্দিন জুয়েল, শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহসহ দলটির নেতারা ছিলেন।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে টুঙ্গিপাড়াসহ জেলার বিভিন্ন স্থান সাজানোর পাশাপাশি নির্মাণ করা হয়েছে অসংখ্য তোরণ। রাষ্ট্রীয় কর্মসূচির সাথে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করছে জেলা ও উপজেলা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ।

১৯২০ সালের এই দিনে টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তাঁর হাত ধরেই আসে বাঙালির স্বাধীনতা। জন্ম নেয় বাংলাদেশ।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট কিছু বিপথগামী সেনা সদস্যর হাতে সপরিবারে নিহত হন তিনি।

স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত মুজিববর্ষ ঘোষণা করে সরকার।

মুজিববর্ষ উদযাপন উপলক্ষে রাজধানীর জাতীয় প্যারেডগ্রাউন্ডে জমকালো উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন হলেও সারা বিশ্বে করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) বিপর্যয়ের কারণে বাংলাদেশের মানুষের জনস্বাস্থ্যের কথা বিবেচনা করে আয়োজনটি স্থগিত করা হয়। অন্য সকল জনসমাগমও বাতিল করা হয়।

সম্পর্কিত পোস্ট

Back to top button
error: Content is protected !!