বগুড়া সদর উপজেলা

বগুড়ায় প্রতিবন্ধী শিশু ধর্ষক আব্দুর রহিম গ্রেফতার

হারুন অর রশিদঃ বগুড়ায় দীর্ঘদিন যাবৎ অভিযান চালিয়ে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশু ধর্ষণের মূলহোতা আব্দুর রহিম কে গ্রেফতার করেছে র‍্যাব। বুধবার সকাল সাড়ে সাত টায় বগুড়ার শাজাহানপুরের শাবরুল বাজারে এ অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ৫ অক্টোবর ধর্ষিতা শিশু মোছাঃ ইসা খাতুন (১২) শাখারিয়া ইউনিয়নের গোপালবাড়ি গ্রামে তার খালার বাড়িতে বেড়াতে আসে। রাস্তার পাশে খেলা অবস্থায় মোঃ খাজা প্রাং এর ছেলে আব্দুর রহিম (৫৫) শিশু টিকে চকলেটের লোভ দেখিয়ে তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় শিশুটির কান্না এবং চিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে ধর্ষক পালিয়ে যায়।

এ ঘটনা নিয়ে ধর্ষকের পিতা মোঃ নুরুল ইসলাম বাদী হয়ে বগুড়া সদর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে মামলা দায়ের করেন। সদর থানায় প্রাথমিক ভাবে ধর্ষণের আলামত পাওয়ায় মামলা রুজু করার আদেশ দেন সদর থানা সার্কেল এস এম বদিউজ্জামান।

কিন্তু ২৫ দিন অতিবাহিত হয়ে যাওয়ার পর আসামি গ্রেফতার না হওয়ায় বিষয়টি বগুড়াসহ সারাদেশে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। এর প্রেক্ষিতে র‌্যাব-১২ বগুড়া ক্যাম্পের গোয়েন্দা সদস্যরা তৎপরতা শুরু করে। পরে ৩০ অক্টোবর বুধবার সকাল সাড়ে সাত টায় ধর্ষক আব্দুর রহিমকে গ্রেফতার করা হয়।

গ্রেফতারের পর র‌্যাব -১২ বগুড়া স্পেশাল কোম্পানি ভারপ্রাপ্ত কমান্ডার সহকারী এসপি মোঃ রওশন আলী সংবাদ সম্মেলনে জানান র‌্যাবের এধরনের চাঞ্চল্যকর অপরাধ বিরোধী অভিযান কার্যক্রম চলমান থাকবে এবং ভবিষ্যতে আরো জোরদার করা হবে। পরবর্তীতে গ্রেফতার ধর্ষককে বগুড়া সদর থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

এদিকে ধর্ষক আব্দুর রহিম গ্রেফতার হওয়ায় এলাকায় সাধারণ মানুষ খুশি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক গোপালবাড়ি গ্রামের একজন বয়জেষ্ঠ্য মহিলা নরপিশাচ ধর্ষকের খুব কঠিন শাস্তি দাবি করেন।

সেই সাথে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী শিশুটির বাবা নুরুল ইসলাম অশ্রুশিক্ত নয়নে নরপিশাচ আব্দুর রহিমের যেন ফাঁসি হয় এমন টায় দাবি জানান আইন শৃঙ্খলাবাহিনীর ওপর।

পোস্টটি শেয়ার করুনঃ
Tags

সম্পর্কৃত পোস্ট

Close